অপরিণত ঘুম কমিয়ে দেয় জীবনের আয়ু

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : ঘুমের সঙ্গে সুস্বাস্থ্যের সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ২০১৫ সালে ম্যাক্স রিখটার নামে একজন কম্পোজার বিভিন্ন গবেষণার পর ৮ ঘণ্টার সঙ্গীত রচনা করেছেন শুধু ভালো ঘুমের জন্য। গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে ঘুম কম হলে তা জীবনের আয়ু কমিয়ে দেয়।

বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেছেন, রাতে জাগা লোকদের দেহ-ঘড়ি’কে আগেভাগে ঘুমানোর জন্য তৈরি করা যায়। কিন্তু ঘুমানোর আগে ক্যাফেইন খাওয়া একদমই উচিত নয়। কারণ ক্যাফেইন শরীরে অন্তত ৯ ঘণ্টা থেকে থাকে। কাজেই ভালো করে ঘুমাতে চাইলে দুপুর ১২টার পর থেকেই চা, কফি ও কোক-পেপসির মতো ‘ফিজি ড্রিংকস’ পান বাদ দিতে হবে।

এছাড়া অনেকেই খালি পেটে ঘুমাতে পারেন না। কিন্তু ভরপেট খেয়ে বিছানায় গেলেও ঘুমের অসুবিধা হতে পারে। ঘুমের প্রায় ৩-৪ ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খেতে হবে। এতে ঘুম না হওয়া কিংবা রাতে জেগে ওঠার সমস্যা কেটে যাবে।

অন্যদিকে, মদ্যপান আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তে আপাতদৃষ্টিতে সাহায্য করলেও সেই ঘুম স্বাস্থ্যের জন্য ভালো অথবা গভীর হবে না। যাকে বলে ‘র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট’ বা ‘আরইএম স্লিপ।’ অগভীর ঘুমে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

ঘুমের ২ ঘণ্টা আগে থেকে টিভি-স্মার্টফোন থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। এগুলো থেকে যে নীল আলো ছড়ায় সেটি আপনার মস্তিষ্ককে ঘুমোতে দেয় না। আর যদি রেডিওতে কিছু শোনেন তাহলে স্লিপ টাইমার ব্যবহার করুন যেন এটা একটা নির্দিষ্ট সময়ে বন্ধ হয়ে যায়।

অপরিণত ঘুম শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বহু বিরূপ প্রভাব ফেলে থাকে। প্রতিদিন রাতে যদি ৫ ঘণ্টার কম ঘুম হয়, তাহলে হার্ট এ্যাটাক, স্ট্রোক এমনকি ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়। প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান ও নিশ্চিত করুন যেন প্রতি রাতে আপনার ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুম হয়।

(ঊষার আলো-এফএসপি)