আজ নড়াইল এক্সপ্রেসের জন্মদিন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো রিপোর্ট : বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম নড়াইল এক্সপ্রেস খ্যাত মাশরাফি বিন মর্তুজা। তার ৩৮তম জন্মদিন আজ। তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা ওয়ানডে অধিনায়ক। যার ভালোবাসার কমতি নেই বাংলাদেশের মানুষের কাছে। কারণ, এই নামের পরশ পেয়ে নতুন করে প্রাণ ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেট।

১৯৮৩ সালের এই দিনে নড়াইলে নানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক। ছোট বেলায় এলাকার সবাই তাকে চিনতো কৌশিক নামে। তার বাবার নাম গোলাম মর্তুজা স্বপন। মায়ের নাম হামিদা মর্তুজা বলাকা। দুই ভাইয়ের মধ্যে মাশরাফি বড়। কাকতালীয়ভাবে ছেলে সাহেলের জন্মও হয়েছে আজকের দিনেই। আগামী নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে বাবা-পুত্রকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা এবং শুভকামনা।

বয়স যখন ১৮ তখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পদার্পন ঘটে এই তারকার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম টেস্ট ফরম্যাটে ২০০১ সালের ৮ নভেম্বর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে মাশরাফীর। সেই থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সঙ্গে তার পথচলা শুরু হয়। টেস্ট ক্রিকেটের ঠিক ক’দিন পরই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই একদিনের ক্রিকেটেও অভিষেক ঘটে তার। এরপর তার সুদীর্ঘ ১৬ বছরের ক্যারিয়ারে রয়েছে অনেক প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির গল্প। রয়েছে অনেক না পাওয়ার ব্যর্থতাও। তবে কোটি কোটি মানুষের কাছে মহানায়ক একজনই, আর তিনি হলেন মাশরাফী বিন মর্তুজা।

সাতবার পায়ে অপারেশনের জন্য ক্রিকেট ক্যারিয়ার থেকে অনেকগুলো বছর হারিয়ে গিয়েছিল মাশরাফীর। তবুও থেমে থাকেননি ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’। ক্যারিয়ারে এতো উত্থান-পতনের পরেও ইনজুরি যেন বোলিংয়ে কোনো প্রভাবই ফেলতে পারেনি ম্যাশকে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা অধিনায়ক মাশরাফী বিন মর্তুজা। দীর্ঘদিন ধরে দলের বাইরে রয়েছেন তিনি। ২০১৭ সালে টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নিলে ২০২০ সালে জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর থেকে ওয়ানডেতেও নেই।

মাশরাফী সর্বশেষ দেশীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে জেমকন খুলনার হয়ে খেলেছিলেন। এক ম্যাচে ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৪ ওভারে ৩৫ রানে ৫ উইকেট নেন তিনি। এরপর ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে খেলার প্রত্যাশা থাকলেও বয়স ও দীর্ঘ পরিকল্পনার অজুহাতে তাকে দলের বাইরে রাখা হয়।

এরপর অনেকগুলো সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। সাফল্য, ব্যর্থতা সবই এসেছে কিন্তু তার আর দলে ফেরা হয়নি। আদৌ তাকে ঘিরে হয়তো আর কোনো পরিকল্পনা নেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। তবে মাঠের ক্রিকেটে নিজেকে আরও কয়েকবছর ধরে রাখতে চান তিনি।

(ঊষার আলো-এমএনএস)