আমড়া দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে করে দ্বিগুণ শক্তিশালী

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষর আলো ডেস্ক : আমড়ায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, আয়রন, ক্যালসিয়াম আর আঁশ, যেগুলো শরীরের জন্য খুবই দরকারি। হজমেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে থাকে। তাই তেল ও চর্বিযুক্ত খাদ্য খাওয়ার পর আমড়া খেয়ে নিতে পারেন।

আমড়ায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকায় এটি খেলে স্কার্ভি রোগ এড়ানো যায়। নানান প্রকার ভাইরাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধেও লড়তে পারে আমড়া। এছাড়া অসুস্থ ব্যক্তিদের মুখের স্বাদ ফিরিয়ে দেয়।

সর্দি-কাশি-জ্বরের উপশমেও এটি অত্যন্ত উপকারী। শিশুর দৈহিক গঠনে ক্যালসিয়াম খুবই দরকারি। ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস আমড়া। এটি রক্তস্বল্পতাও দূর করে থাকে। বেশ কিছু ভেষজ গুণ আছে আমড়ায়। এটি পিত্তনাশক এবং কফনাশক। আমড়া খেলে মুখে রুচি ফেরে ও ক্ষুধা বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে।

এতে থাকা ভিটামিন সি রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। খাদ্যে থাকা ভিটামিন এ এবং ই এটির সাথে যুক্ত হয়ে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে দেহকে বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত থেকে রক্ষা করে। দাঁতের মাড়ি শক্ত করে, দাঁতের গোড়া থেকে রক্ত, পুঁজ ও রক্তরস বের হওয়া প্রতিরোধ করে আমড়া। এর ভেতরের অংশের চেয়ে বাইরের খোসাতে আছে বেশি ভিটামিন সি আর ফাইবার বা আঁশ, যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে করে থাকে দ্বিগুণ শক্তিশালী। আর আঁশজাতীয় খাবার পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত, গাছহদন্ত্রের (পেটের ভেতরের অংশবিশেষ) জন্য আশীর্বাদ স্বরূপ।

(ঊষার আলো-এফএসপি)