UsharAlo logo
মঙ্গলবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আশাশুনির জেলেখালী-দয়ারঘাট পাউবো’র বেড়ী বাঁধের ক্লোজারে কাজ শুরু

usharalodesk
এপ্রিল ৫, ২০২১ ১০:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সুপেয় পানি, খাদ্য স্যানিটেশন ও বিদ্যুৎ সমস্যা প্রকট

আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা আশাশুনি উপজেলা সদরে ভেঙ্গে যাওয়া রিং বাঁধ আটকানো সম্ভব হলেও পাউবো’র মূল বেড়ী বাঁধ নির্মান কাজ সম্ভব হয়নি। প্লাবিত এলাকার পানিবন্ধী মানুষ সুপেয় পানি সংকট, খাদ্য সংকট, স্যানিটেশন ও বসবাসের সমস্যা জর্জরিত রয়েছে। উপজেলার আরও ১০/১২ পয়েন্টে বেড়ী বাঁধের অবস্থা শোচনাীয় হয়ে পড়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুধাংশু কুমার সরকার ও এসডিই মাজহারুল ইসলাম জানান, সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তুলনায় নদীতে কমপক্ষে ১০-১২ সেঃ মিঃ পানি বৃদ্ধি পেয়ে ৩.৫৪ মিঃ উচ্চতায় পরিণত হওয়ায় রিং বাঁধ টিকতে পারেনি। অনেক পরিশ্রমের বিনিময়ে ভাঙ্গন কবলিত রিং বাধ রক্ষার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (৩ এপ্রিল) থেকে মূল বাঁধে দু’টি পয়েন্টে ২১০ ফুট ভাঙ্গন স্থানে ক্লোজারের বেডের কাজে হাত দেয়া হয়েছে। রোববার (৪ এপ্রিল) জিও বস্তায় বালি ভরে ছোট ক্লোজারের চাপান দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে বড়টির ক্লোজার চাপান দেয়া হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ক্লোজার চাপান সম্পন্ন সম্ভব হবে ইনশাল্লাহ।
মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) খোলপেটুয়া নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় সদর ইউনিয়নের ভাঙ্গন কবলিত এলাকার শান্তনা হিসাবে বৃহত্তর এলাকাকে রক্ষার্থে দেয়া রিং বাঁধ ভেঙ্গে যায়। সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তুলনায় ১০ থেকে ২০ সে.মি উচু জোয়ারের চাপে মঙ্গল ও বুধবার দু’দিনে ৬টি পয়েন্টে রিং বাধ ভেঙ্গে জেলেখালী, দয়ারঘাট, আশাশুনি পূর্ব পাড়া, পশ্চিম পাড়া, দুর্গাপুর গ্রাম এলাকা প্লাবিত হয়। শতাধিক মৎস্য ঘের, অসংখ্য সাদা মাছ চাষের পুকুর, বসতবাড়ী, গবাদি পশুসহ আধা পাকা ও কাচা বোরো ধানের কৃষি জমি নিমজ্জিত ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
গত ৩ দিনে প্রাণপণ পরিশ্রম করে রিং বাধ রক্ষার কাজ করা হয়। পাউবো জিও ব্যাগ, জেলা প্রশাসন বাঁধ রক্ষার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের জন্য মজুরি হিসাবে ৭ কেজি করে চাউল প্রদান করেন। সদর ইউপি চেয়ারম্যান স ম সেলিম রেজার ব্যবস্থাপনায় পাউবোর কর্মকর্তাদের দিকনির্দেশনায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষের অংশ গ্রহনে বৃহস্পতিবার রিং বাঁধের ভাঙ্গন স্থান (পয়েন্ট) হ্যাঁচারী এলাকা, মনিন্দ্র নাথ, রণজিৎ বৈদ্য, শংকর কুমার, নিরান চন্দ্র ও পুলিন কুমারের বাড়ির কাছে রিং বাঁধ আটকানোর কাজ শেষ হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হুসেইন খাঁন নিয়মিত কাজের খোঁজখবর নেন এবং প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। দীর্ঘ ৯ মাস অতিক্রান্ত হলেও সুপার সাইক্লোনের আঘাতে (২০ মে-’২০) ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ বাঁধা হয়নি। অপরদিকে দ্বিতীয় দফায় (৩০ মার্চ- ’২১) এলাকাটি প্লাবিত হওয়ায় ৩৫০ পরিবারের মানুষ সুপেয় পানি, খাদ্য সংকট ও স্যানিটেশন সমস্যা জর্জরিত হয়ে পড়েছে। কাজ-কাম না থাকা, মাছের ঘের ও ক্ষেত খামার তলিয়ে যাওয়ায় আর্থিক সংকটে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। এ পর্যন্ত সরকারি ভাবে কোন শুস্ক খাবার, চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা করা হয়নি। সরকারিভাবে শুক্রবার পরিবার প্রতি ৭ কেজি করে চাউল দেয়া হয়েছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সুপেয় পানি সরবরাহ করলেও প্রত্যন্ত প্লাবন কবলিত এলাকার অনেকের কাছে পানি পৌছাচ্ছে না।
অপরদিকে উপজেলার প্রতাপনগর, শ্রীউলা ও বড়দল ইউনিয়নে ১০/১২ পয়েন্টে বেড়ী বাঁধের উপর দিয়ে পানি উপচে ভিতরে ঢোকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। হরিষখালী ও কুড়িকাহুনিয়া বাঁধের অবস্থা খুবই শোচনীয় হয়ে পড়েছে। জোয়ারের সময় বাঁধটি উপচে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এসব স্থানে পুনরায় কাজ না করলে সামনে অমাবশ্যাসহ পরবর্তীতে গোণে এসব বাঁধ উপচে ও ভেঙ্গে পুনরায় গোটা এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা বিরাজ করছে।
রিং বাঁধ নির্মানের ফলে লোকালয়ে পানি উঠা বন্ধ হলেও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের দুর্গতি শেষ হয়নি। এলাকার মানুষ এখন সুপেয় পানি ও খাদ্য সংকট, স্যানিটেশন সমস্যা এবং ঘরবাড়ি, ফসল ও মাছের ক্ষতিতে জর্জরিত। বাঁধ নির্মান কাজ দ্রুত সম্পন্নের পাশাপাশি অসহায় মানুষের দুর্দশা লাঘবে প্রয়োজনীয় শুস্ক খাবার, পর্যাপ্ত সুপেয় পানি, চিকিৎসা সেবা ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য এলাকাবাসী জোর দাবী জানিয়েছেন।

(ঊষার আলো-এমএনএস)