UsharAlo logo
সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুষ্টিয়ায় দাফনের ২৬ দিন পর গৃহবধূর লাশ উত্তোলন

usharalodesk
মে ১৭, ২০২১ ৭:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঊষার আলো ডেস্ক : কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে দাফনের ২৬ দিন পর কবর থেকে এক গৃহবধুর লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। নিহত গৃহবধূ বাগুলাট ইউনিয়নের আদাবাড়িয়া গ্রামের আসাদ মুন্সী ওরফে উজ্জলের স্ত্রী।
সোমবার (১৭ মে) দুপুরে আদালতের নির্দেশে ‌এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ বনি আমীনের উপস্থিতিতে কুমারখালী থানা পুলিশ পারিবারিক কবরস্থান থেকে লাশ উত্তোলন করে। পরে সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। অপরদিকে শিলার লাশ উত্তোলনের খবর পেয়ে উৎসুক জনতা ভিড় জমান কবরস্থান ও আশপাশে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ বনি আমিন জানান, গলিত লাশটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হবে। প্রতিবেদন রিপোর্ট হাতে পেলে আদালতে দায়ের করা মামলাটি আমলে নিয়ে বিচারিক কার্যক্রম শুরু হবে।
নিহতের পরিবার ও থানা সূত্রে জানা গেছে, গত ১৯ এপ্রিল শিলার অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়। কিন্তু ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশটি দাফন করা হয়েছিল।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমারখালী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পীযুষ কান্তি কর্মকার বলেন, লাশ দাফনের ৬ দিন পর শিলার ভাই আব্বাস মিয়া থানায় অভিযোগ করেন। পরে কোর্টের নির্দেশে থানায় গত ৪ মে মামলা রুজু হয়। পুলিশ তদন্তের স্বার্থে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আবেদন করে। আদালত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কবর থেকে লাশ উত্তোলনের নির্দেশ দেন।
এ বিষয়ে নিহতের বড় ভাই ও মামলার বাদী আব্বাস মিয়া বলেন, ১৪ বছর আগে উজ্জলের সাথে বোনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের টাকা ও সেনাবাহিনীর চাকরির জন্য বোনকে ওরা শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছিল। যৌতুকের টাকা না পেয়েই ওরা বোনকে ১৯ এপ্রিল দুপুরে হত্যা করে এবং ২০ এপ্রিল সকাল ৯টায় বাঁশগ্রাম বাজার সংলগ্ন কবরস্থানে দাফন করে।
তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তার অভাবে কাউকে কিছু জানাতে পারিনি। পরে বাড়ি ফিরে আত্মীয়দের সাথে পরামর্শ করে ২৫ এপ্রিল রাতে কুমারখালী থানায় অভিযোগ করি। গত ৪ মে থানায় মামলা রুজু হয়।

(ঊষার আলো-এমএনএস)