UsharAlo logo
মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোভিড-১৯ প্রতিরোধে রাইনোভাইরাস ভূমিকা রাখতে পারে

usharalodesk
মার্চ ২৪, ২০২১ ২:৩৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঊষার আলো রিপোর্ট : টিকা প্রয়োগের পরেও সারা পৃথিবীতে আবারও থাবা বসাতে শুরু করেছে মহামারি করোনাভাইরাস। এদিকে গবেষকরাও বিরতিহীনভাবে গবেষণা করে যাচ্ছে কীভাবে একে থামানো যায়। বিবিসি জানিয়েছে, ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোর একদলের গবেষণাতে জানা যায় সাধারণ সর্দি-জ্বর কোভিড-১৯ ভাইরাসকে কার্যকরভাবে শরীরের কোষ থেকে বের করে দিতে পারে।
গবেষকদের ধারণা, শীতকালে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রাইনোভাইরাস ভূমিকা রাখতে পারেন। রাইনোভাইরাস এতটাই বিস্তৃত যে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে এটি সহায়তা করতে পারে বলে মনে করছে তারা।
গবেষকরা বলেন, বিষয়টি বুঝতে নাক, গলা ও ফুসফুসের কোষগুলোকে সারিবদ্ধ কয়েকটি ঘর হিসেবে চিন্তা করুন। একবার কোনও ভাইরাস প্রবেশের পর এটি অন্য ভাইরাসের জন্য দরজাটি খোলা রাখতে পারে। আবার দরজাটি বন্ধ করে পুরো শরীরে নিজেই বাসা বাঁধতে পারেন।
ইনফ্লুয়েঞ্জা সবসময়ই একা সংক্রামিত হয়ে থাকে। অন্য ভাইরাস যেমন অ্যাডেনোভাইরাস সাধারণত অন্য ভাইরাসের সঙ্গে ঘর ভাগ করে নিলেও এটি কখনোই তা করে না। বিবিসি বলেছে, ১ বছর সামাজিক দূরত্বের কারণে সমস্ত ভাইরাসেরই বিস্তার কমেছে। ফলে এ নিয়ে বিজ্ঞানীদের গবেষণা করে নিখুঁত ফল পাওয়া বেশ কঠিন হচ্ছে।
বিজ্ঞানীরা বলেন, রাইনোভাইরাস বিশ্বের অন্যতম বিস্তৃত সংক্রামক রোগ, এর সংক্রমণেই সাধারণ সর্দি-জ্বর হয়ে থাকে। পরীক্ষা করে দেখা যায়, যদি রাইনোভাইরাস ও সার্স-কোভ-২ একই সময়ে শরীরে প্রবেশ করলে তবে কেবল রাইনোভাইরাসই সফল হয়। যদি রাইনোভাইরাস ২৪ ঘণ্টা আগে প্রবেশ করে থাকে তবে সার্স-কোভ-২ শরীরে প্রবেশ করতে পারে না। এমনকি সার্স-কোভ-২ যদি ২৪ ঘণ্টা আগে প্রবেশ করে তবুও রাইনোভাইরাস পরে শরীরে প্রবেশ করে এটিকে বের করে দেয়।
ওই গবেষক দলের একজন ডা. পাবলো মার্সিয়া বিবিসি নিউজকে জানিয়েছে, এর অর্থ হলো আপনি যদি রাইনোভাইরাসে আক্রান্ত হন তবে এটি সার্স-কোভ-২ এর সংক্রমণ ঠেকাতে পারে।’
ডা. মার্সিয়া বলেন, কোভিড-১৯ ঠেকাতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখবে গণহারে টিকাদান।

(ঊষার আলো-এম.এইচ)