খালিশপুরে লিটন হত্যায় আরও দু’আসামি গ্রেফতার: জবানবন্দী প্রদান

সর্বশেষ আপডেটঃ
ছবি: ভিকটিম চায়ের দোকানদার মো: লিটন।

ঊষার আলো প্রতিবেদক : নগরীর খালিশপুরে চা দোকানদার মোঃ লিটন শেখ(৪২) হত্যার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আরও দু’জন আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে একজন আদালতে স্বীকারোক্তীমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে। এ নিয়ে লিটন হত্যা মামলায় ৯ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। তার মধ্যে তিনজন ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খালিশপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ (তদন্ত) নিমাই চন্দ্র কুন্ডু এ তথ্য জানান।
তিনি আরও বলেন, নতুন করে গ্রেফতারকৃতরা হলো কাশিপুর বাইতিপাড়ার বাসিন্দা আবুল কালামের ছেলে রাসেল হোসেন(২৮) ও একই এলাকার বাদশা মিয়ার ছেলে আল আমিন (২১)। এর মধ্যে আল আমিন আদালতে স্বীকারোক্তীমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদানকারী অন্য দু’আসামি হলো, নগরীর বাস্তুহারা ১২নং রোডের বাবুল শেখের ভাড়াটিয়া বাবু শেখের ছেলে রাজু (২৪) ও উত্তর কাশিপুর বাইতিপাড়া রেল লাইন এলাকার লোকমান শেখের ছেলে আসলাম (২০)। গ্রেফতারকৃত বাকী ছয় আসামী হলো, উত্তর কাশিপুর কবরখানা রোড মহির বাড়ির ভাড়াটিয়া আলামিন(২৪), উত্তর কাশিপুর মুরাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া মৈল এর ছেলে আব্দুল্লাহ(৩৯), উত্তর কাশিপুর হোসেনের ছেলে হেলাল(২০), কাশিপুর পদ্মারোড তেতুলতলার মোড় হেমায়েত ডাক্তারের বাড়ির ভাড়াটিয়া মনির হোসেনের ছেলে মোঃ মাহির(২১) ও দৌলতপুর দেয়ানা মোল্লাপাড়ার বাসিন্দা মৃতঃ বাদশা মিয়ার ছেলে আশিকুর রহমান (১৯)।
নিহতের ছোট ভাই আল আমিন বলেন, “আমরা পাহারা দিয়ে নতুন করে দু’জন আসামী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছি। এর মধ্যে আল আমিনকে আটক করতে গেলে সে আমার ভাইপো শামীমকে (নিহতের ছেলে) ছুরি মারে। অল্পের জন্য সে রক্ষা পায়। তবে দৌড়ে আসামিকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। এসব কাজ পুলিশে করবে। অথচ পুলিশ আসামি গ্রেফতার করছে না। এ সুযোগে খুনিরা এলাকায় আনাগোনা শুরু করেছে।
খুনের ঘটনায় লিটনের স্ত্রী হেলেনা বেগম বাদী হয়ে খালিশপুর থানায় জয়নাল, শাহাদৎ, আজা লিটন, রাজু, রোকন, আল আমিন, আসলাম, টিক্কি রুবেল, আকিব, সাকিব, আব্দুল্লাহ, এলকো সোহেল, গরু মামুন, মাড়ুয়া আল আমিন, হেলাল, সাব্বির, মোঃ মাহির, বাবু, আশিকুর রহমানসহ মোট ১৯ জনের নামে এজাহার করেন। মামলায় আরও ১০/১৫ জনকে আজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে নয় আসামিকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃত উত্তর কাশিপুর মুরাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া মৈল-এর ছেলে আব্দুল্লাহ এলাকার তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে অর্ধ ডজন মাদক মামলা রয়েছে বলে ১৯ এপ্রিল আদালতে প্রেরিত প্রতিবেদনে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসব তথ্য উল্লেখ করেন। ওই প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, চা বিক্রেতা লিটন মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় তাকে হত্যা করা হয়েছে।
নিহতের ছোট ভাই ইমামুল বলেন, এ হত্যাকান্ড নিয়ে তারা মুখ খুলতে পারছেন না। প্রভাবশালীদের চাপের মুখে পুরো পরিবার। একই সুরে কথা বলার চেষ্টা করছে থানা পুলিশও।
উল্লেখ্য, ১৭ এপ্রিল দিনগত রাত ১টার দিকে লিটনকে কয়েকজন ফোন করে ডেকে নেন। এ সময় তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে লিটন ও আমিনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। তাদের চিৎকারে স্বজনরা ছুটে এসে লিটন ও আমিন উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লিটনকে মৃত ঘোষণা করেন। মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় তাকে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা খুন করে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

(ঊষার আলো-এমএনএস)