ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ খুলনা উপকূলে পৌঁছাতে পারে ২৬ মে নাগাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ
Strom_rain Ualo
প্রতিকী ছবি (সংগৃহিত)

ঊষার আলো রিপোর্ট : উত্তর আন্দামান সাগর ও তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ আগামী ২৬ মে নাগাদ খুলনা উপকূলে পৌঁছাতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। শুক্রবার (২১ মে) আবহাওয়া অধিদফতর ঘূর্ণিঝড় সতর্কবার্তায় এসব তথ্য জানিয়েছে।
এ অবস্থায় খুলনা উপকূলে সাতক্ষীরা এলাকায় ঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।
আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ-ভারতের দিকে ধেয়ে আসতে যাওয়া এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম ইয়াস (ণধংং)। এর নামকরণ করেছে ওমান। উত্তর আন্দামান সাগর ও তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় বর্তমানে লঘুচাপ পরিস্থিতি রয়েছে। এটি ঝূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। পরবর্তীতে এটি উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে ২৬ মে নাগাদ উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশের খুলনা উপকূলে পৌঁছতে পারে।
আবহাওয়া দপ্তর জানায়, শনি (২২ মে) বা রবিবার (২৩ মে) লঘুচাপটি তৈরি হতে পারে। তারপর এটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়ার সম্ভাবনা আছে। ২৭ বা ২৮ মে এটা বাংলাদেশ-ভারতে আঘাত করতে পারে
এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘যশ বা ইয়াস’ মোকাবেলায় উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে জেলা প্রশাসন সম্মেলন কে সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সাতীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে জুমে যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন, সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, সংসদ সদস্য অ্যাড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, সিভিল সার্জন হুসাইন শাফায়াত, পৌর মেয়র তাজকিন আহমেদ চিশতি, এন এস আই সাতক্ষীরার উপপরিচালক জাকির হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) সজিব খান, সাতীরা প্রেসকাবের সভাপতি মমতাজ আহমেদ বাপী, পানি উন্নয়ন বোর্ড-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের, পানি উন্নয়ন বোর্ড -২ এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলামসহ জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য এবং উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্যবৃন্দ।