চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে নিম

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : নিম একটি ঔষধি গাছ যার ডাল, পাতা এমনকি রস সবই কাজে লাগে। ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া নাশক হিসেবে নিম খুবই কার্যকর। আর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও এর কোনো জুড়ি নেই।

চলুন জেনে নেওয়া যাক নিমের বিভিন্ন উপকারিতাগুলো:

চুল. উজ্জ্বল, সুন্দর এবং দৃষ্টিনন্দন চুল পেতে নিমপাতার ব্যবহার বেশ কার্যকর। চুলের খুসকি দূর করতে শ্যাম্পুর সময় নিমপাতা সিদ্ধ পানি দিয়ে চুল ম্যাসেজ করে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন খুশকি দূর হয়ে যাবে। সপ্তাহে এক দিন নিমপাতা ভালো করে বেটে চুলে লাগিয়ে ১ ঘণ্টার মতো রাখুন। তারপর ১ ঘণ্টা পর ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন চুল পড়া কমার পাশাপাশি চুল নরম ও কোমল হবে।

ত্বক. বহুদিন ধরেই রূপচর্চায় নিমের ব্যবহার হয়ে আসছে। ত্বকের দাগ দূর করতে নিম খুব ভালো কাজ করে থাকে। এছাড়া এটি ত্বকে ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও কাজ করে ও ব্রণ দূর করতেও নিমপাতা বেটে লাগাতে পারেন। মাথার ত্বকে চুলকানি ভাব থাকলে নিমপাতার রস মাথায় নিয়মিত লাগালে এই চুলকানি কমে। নিয়মিত নিমপাতার সাথে কাঁচা হলুদ পেস্ট করে লাগালে ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি ও স্কিন টোন ভাল হয়।

দাঁতের রোগ. দাঁতের সুস্থতায় নিমের ডাল দিয়ে মেসওয়াক করার প্রচলন রয়েছে সেই প্রাচীনকাল হতেই। নিমের পাতা এবং ছালের গুড়া বা নিমের ডাল দিয়ে নিয়মিত দাঁত মাজলে দাঁত হবে মজবুত ও রক্ষা পাবেন দন্ত রোগ থেকেও।

কৃমিনাশক. পেটে কৃমি হলে শিশুরা রোগা হয়ে যায় ও পেটে বড় হয়। এমনকি চেহারা ফ্যাকাশে হয়ে যায়। বাচ্চাদের পেটের কৃমি নির্মূল করতে নিমের পাতার কোনো জুড়ি নেই।

(ঊষার আলো-এফএসপি)