ডিজাইনে ত্রুটির কারণেই বারবার বাঁধের ভাঙন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেছেন, ‘১৯৯৬ সালে টাঙ্গাইল ও সিরাজগঞ্জ নদী শাসনের কাজ করেছে হুন্দাই কোম্পানি। ৩৭৫ কোটি টাকা ব্যায়ে শহর রক্ষা বাঁধের আড়াই কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। নির্মাণের ২২ বছরে ছয় বার ভাঙন দেখা দেয়। হুন্দাই কোম্পানি ১০০ বছরের গ্যারান্টি দিয়েছিল। তাদের ডিজাইনে ত্রুটি আছে। তা না হলে বার বার কেন ভাঙবে? ভাঙনের আর কোনো কারণ দেখছি না।’ শুক্রবার (২ জুলাই) দুপুরে সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধের ভাঙন এলাকা পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, ‘সারা বছর আমরা নদীর সঙ্গে যুদ্ধ করে চলি। বিশেষ করে এবার টানা বর্ষণের ফলে দ্রুত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় যমুনা নদীতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন রোধে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ৬ ঘণ্টার মধ্যে ভাঙন ঠেকানো হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড বন্যা আসার আগেই ভাঙন রোধে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। শহর রক্ষা বাঁধে এখন আর কোনো বিপদের আশঙ্কা দেখছি না।’
সচিব আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে ১ নম্বর গ্রোয়েন পর্যন্ত সার্ভে করা হবে। শনিবার (৩ জুলাই) থেকে আই ডাব্লিউ, সিজিআইএস ও আমাদের হাইড্রোজিং ডিপার্টমেন্টসহ তিন ক্যাটাগরিতে পুরোটা সার্ভে করা হবে।’
এসময় সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ, সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোডের্র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম, উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাকির হোসেনসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে গত ২৯ জুন ১৫০ মিটার শহর রক্ষা বাঁধ নদীতে বিলীন হয়ে যায়।
(ঊষার আলো-এমএনএস)