ডুমুরিয়ার কিশোর গ্যাং এর বিস্তার; বেড়েছে ছিনতাই ও ইভটিজিং

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় চলছে কিশোর গ্যাং এর বিস্তার। কাঁঠালতলা টু মাগুরখালী বাজার এলাকায় যাতায়াতের রাস্তা । বিকেল বা সন্ধ্যার পরপরই এই রাস্তাই শুরু হয় কিশোর গ্যাং এর বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। কাঁঠালতলা টু মাগুরখালী রোডটি যেহেতু গ্রামের মধ্যে অবস্থিত সেহেতু রাস্তার দু’পাশে আছে বসতবাড়ি। কোন মেয়ে কিংবা মহিলা বাড়ির উঠানে কিংবা রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকলে হতে হচ্ছে ইভটিজিংয়ের শিকার।
এলাকার মেয়েরা স্কুল কিংবা কোচিং-এ গেলে রাস্তায় হতে হয় ইভটিজিংয়ের শিকার। অশ্লীল ভাষায় কমেন্ট ও গায়ের পোশাক ধরে টেনে মাটিতে ফেলে দেয়াসহ ছিনতাই চুরির মতন ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। এ যেন হয়ে উঠেছে অভিভাবকহীন এলাকা। এমনি ঘটনা ঘটে রবিবার (৬ জুন) বিকেল ৫টায় কাঁঠালতলা টু মাগুরখালী রোডের মাঝে সুন্দরবুনিয়া নামক এলাকায়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাস্তাদিয়ে এক মহিলা হেটে যাওয়ার সময় অজ্ঞাতনামা ২ জন বাইকে এসে বলে কাকি খুলনায় যাবো কোনদিক দিয়ে। এ কথা বলে গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনতাই করে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় এক ব্যক্তি তাদেরকে ধরতে গেলে ছুরির ভয় দেখিয়ে চলে যায়।
এলাকার শান্তনু সরদার বলেন, এমন ঘটনা এর আগেও অনেক ঘটেছে। আমার মেয়ে প্রতিদিন স্কুলে ও কোচিং-এ যাওয়ার পথে প্রায় প্রতিদিনই বাইরে থেকে বকাটে ছেলে-পেলেরা আমাদের গ্রামে এসে তাকেসহ অনেককে উত্ত্যক্ত করে। এমনকি ওড়না টান দেয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে।
তিনি আরও বলেন, আমি নিজে অনেক দিন তাদেরকে ধরার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তাদেরকে ধরতে পারিনি। অনেকবার পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি। এমনটা চলতে থাকলে আমাদের ছেলেমেয়ে দের বাইরে বের হাওয়াই বিপদজনক হয়ে দাঁড়াবে।
এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানা যায়, এসব বখাটে ছেলেরা চুকনগর, কাঁঠালতলা, খর্ণিয়া, ডুমুরিয়া, শাহাপুর, থেকে প্রতিদিন আসে। তারা স্থানীয় ক্যাম্পে অনেকবার অভিযোগ করা সত্ত্বেও কোন সুফল মেলেনি।

(ঊষার আলো-এমএনএস)