UsharAlo logo
শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুধ পাস্তুরাইজ না করেই হাতিয়ে নিল ২৫ লাখ টাকা

usharalodesk
জুন ১০, ২০২৪ ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঊষার আলো রিপোর্ট : ঢাকার সাভার গো-প্রজনন ও দুগ্ধ খামার থেকে সপ্তাহে দুদিন মন্ত্রণালয়ে দুধ সরবরাহ করা হয়। আর অন্যান্য দিন উন্মুক্ত থাকে সাধারণ মানুষের জন্য। এসব দুধ পাস্তুরাইজ না করেও প্যাকেটের গায়ে উল্লেখ করা হচ্ছে পাস্তুরাইজকৃত দুধ। মূলত গত ছয় মাস ধরে গো-প্রজনন ও দুগ্ধ খামারের কর্মকর্তারা পাস্তুরাইজড দুধের নামে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া খাওয়াচ্ছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের। এ ছাড়া পাস্তুরাইজ না করেই প্যাকেটের গায়ে পাস্তুরাইজ লিখে বাড়তি দাম নিয়ে গত ছয় মাসে ডেইরি কর্মকর্তারা হাতিয়ে নিয়েছেন অন্তত ২৫ লাখ টাকা।

গবেষকরা বলছেন, পাস্তুরাইজেশন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গবাদিপশুর কাঁচা দুধ ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় উষ্ণ করে আবার ৩০ সেকেন্ডের কম সময়ে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে ঠান্ডা করে দুধ প্যাকেটজাত করতে হয়। এর ফলে দুধে থাকা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া প্যাথোজেনসহ অন্যান্য ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হয়ে যায়।

সাভার কেন্দ্রীয় গো-প্রজনন ও দুগ্ধ খামারের বায়ার অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, পর্যাপ্ত বাজেট না থাকায় আমরা গ্যাস বিল পরিশোধ করতে পারিনি। ফলে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ডেইরি প্লান্টের গ্যাস সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেয়। তাই দুধ গত ছয় মাস বা কিছু কম সময় ধরে পাস্তুরাইজ করা সম্ভব হচ্ছে না।

জেনেশুনে মন্ত্রী-সচিবদের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াযুক্ত দুধ খাওয়ানো হচ্ছে কি না-জানতে চাইলে সাভার কেন্দ্রীয় গো-প্রজনন ও দুগ্ধ খামারের পরিচালক ডা. মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, আমাদের কাছে বিকল্প কোনো উপায় ছিল না। তাই আমরা পূর্বের পলিতেই (পাস্তুরাইজড উল্লেখকৃত প্যাকেট) ওই দুধ প্যাকেটজাত করে সচিবালয়ে পাঠাই। পাস্তুরাইজ না করেও দুধের মূল্য ১০ টাকা অতিরিক্ত আদায়ের কারণ ও এই কৌশলে ২৫ লাখ টাকা আত্মসাতের বিষয়ে তার কাছে সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুগ্ধ খামারের এক কর্মকর্তা বলেন, ২৪০টি দুধেল গাভি থেকে প্রতিদিন ১৪শ লিটার দুধ সংগ্রহ করা হয়। এই হিসাবে গত ছয় মাসে ২ লাখ ৫২ হাজার লিটার দুধ সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রতিলিটারে পাস্তুরাইজেশনের নামে অতিরিক্ত ১০ টাকা আদায় করা হলে ২ লাখ ৫২ হাজার লিটার দুধে ২৫ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। প্লান্ট চালানোর সদিচ্ছা থাকলে তারা বকেয়া গ্যাস বিল মাত্র ৩ লাখ টাকা এখান থেকেও পরিশোধ করে ডেইরি প্লান্ট চালু করতে পারতেন।

কেন্দ্রীয় গো-প্রজনন ও দুগ্ধ খামারের ডেইরি অফিসার রেজওয়ানা আফরীন খান বলেন, ডেইরি প্লান্টের সব বিষয় পরিচালক স্যারের নির্দেশনার আলোকে বাস্তবায়ন করে থাকি। তাই টাকা আত্মসাতের দায় আমার ওপর চাপানো ঠিক হবে না।

ঊষার আলো-এসএ