দেশের ১৫ জেলায় ঈদ-উল-আযহা উদযাপন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে মঙ্গলবার (২০ জুলাই) দেশের ১৫ জেলায় ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে। দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৬০ গ্রাম, চাঁদপুরের ৪০ গ্রাম, শরীয়তপুরের ৫০ গ্রাম, বরিশাল বিভাগের ছয় জেলার ৭৫টি মসজিদে, দিনাজপুরের ১৫ গ্রামে, সাতক্ষীরায় সাত স্থানে, শেরপুরের সাত গ্রাম, গাজীপুর, পঞ্চগড় ও নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ঈদুল আজহার জামাত আদায় ও পশু কোরবানি হয়েছে। ঈদ জামাত থেকে বর্তমান করোনা পরিস্থিতি থেকে মুক্তির জন্য দোয়া ও মোনাজাতও করেছেন মুসল্লিরা।
চট্টগ্রাম থেকে জানা যায়, প্রতিবছরের মতো এবারও চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবার শরিফ ও চন্দনাইশের জাঁহাগিরিয়া শাহছুফি মমতাজিয়া দরবার শরিফের অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেন। সাতকানিয়ার মির্জারখীল দরবার শরিফের সৈয়দ মাওলানা আবদুর রহমান শাহ জাঁহাগিরি ও চন্দনাইশ কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়নের জাঁহাগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মতি মিয়া মনসুর জানান, মঙ্গলবার সৈয়দ মো. আলীর ইমামতিতে প্রথম জামাত সকাল ৮টায় ও দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মনজুর আলীর ইমামতিতে দ্বিতীয় জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। অন্যদিকে সাতকানিয়া দরবার শরীফের সৈয়দ মাওলানা আবদুল হামিদ শাহ জাঁহাগিরির (নুরুল আরেফিন) ইমামতিতে মির্জাখীল দরবার শরিফে সকাল ৯টায় ও সৈয়দ মাওলানা ড. মাকসুদুর রহমান শাহ জাঁহাগিরির ইমামতিতে সকাল সাড়ে ৯টায় একই দরবারে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
চন্দনাইশ জাঁহাগিরিয়া দরবার সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চন্দনাইশ উপজেলার জাঁহাগিরিয়া শাহছুফি মমতাজিয়া দরবার শরীফের বর্তমান পীর সৈয়দ মোহাম্মদ আলীর (ম.জি.আ.) অনুসারীরা দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশ পৌরসভার বুলার তালুক, হরিনার পাড়া, ফকির পাড়া, সর্বল কাজী বাড়ি, চন্দনাইশ উপজেলার কাঞ্চননগর, হারলা, বাইনজুরি, কানাইমাদারি, সাতবাড়িয়া, বরকল, ধোপাছড়ি , দোহাজারি, জামিজুরি, পশ্চিম এলাহাবাদ, উত্তর কাঞ্চননগর, জুনিঘোনা, আব্বাসপাড়া, মাঝের পাড়া, দিঘির পাড়া, কুন্দুপাড়া, কেশুয়া, মোহাম্মদপুর, উত্তর হাশিমপুর, ছৈয়দাবাদ, খুনিয়ারপাড়া, শ্রীমাই, রুপকানিয়া, জলদী, গুনাগরি, কালিপুর, গন্ডামারার, মিরিঞ্জিরতলা, ছনুয়া, সাধনপুর, তৈলারদ্বীপ, বাথুয়া, বারখাইন, চরণদ্বীপ, খরণদ্বীপ, বড়হাতিয়া, চুনতি, পুটিবিলা, উত্তর সুখছড়ি, বাংলাবাজার, মইশামুড়া, খোয়াছপাড়া, বাজালিয়া, কাঞ্চনা, গাটিয়াডাঙ্গা, পুরানগড়, মনেয়াবাদসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেন।
চাঁদপুরে
চাঁদপুর জেলার ৪০ গ্রামে মঙ্গলবার ঈদুল আজহা পালিত হচ্ছে। সৌদি আরবে সোমবার (১৯ জুলাই) হজ সম্পন্ন হওয়ায় হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা দরবার শরিফের অনুসারীরা ঈদ উদযাপন করছেন মঙ্গলবার। এই দরবারের বর্তমান পীর শাইখ মো. আরিফ চৌধুরী বলেন, দরবারের প্রতিষ্ঠাতা পীর মাওলানা ইসহাক প্রথম চন্দ্র দর্শনের ভিত্তিতে ধর্মীয় উৎসব পালনের রেওয়াজ চালু করেন। এজন্য প্রতিবছর সৌদির সঙ্গে মিল রেখে আমরা ঈদ ও রোজা পালন করি। স্থানীয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার হাজীগঞ্জ উপজেলার বলাখাল, শ্রীপুর, মনিহার, বরকুল, অলীপুর, বেলচোঁ, রাজারগাঁও, জাকনি, কালচোঁ, মেনাপুর, ফরিদগঞ্জ উপজেলার শাচনমেঘ, খিলা, উভারামপুর, পাইকপাড়া, বিঘা, উটতলী, বালিথুবা, শোল্লা, রূপসা, বাশারা, গোয়ালভাওর, কড়ইতলী, নয়ারহাট, মতলবের মহনপুর, এখলাসপুর, দশানী, নায়েরগাঁও, বেলতলীসহ কচুয়া ও শাহরাস্তির কয়েক গ্রামের মুসল্লিরা ঈদ উদযাপন করছেন।
শরীয়তপুর প্রতিনিধি জানান, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশের সঙ্গে মিল রেখে শরীয়তপুরের ছয় উপজেলার ৫০টি গ্রামে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে। বিষয়টি বাংলা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন সুরেশ্বর দরবার শরিফের গদিনশিন পীর সৈয়দ সেলিম শাহ নূরী আল সুরেশ্বরী। তিনি জানান, সুরেশ্বর দরবার শরীফ মাঠ প্রাঙ্গণে মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টায় ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। শরীয়তপুরের ছয়টি উপজেলার ৫০ গ্রামের লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপন করছেন।
বরিশাল প্রতিনিধি জানান, বিভাগের ছয় জেলার ৭৫টি মসজিদে ঈদুল আজহার আগাম জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যে এসব ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এরা চট্টগ্রামের চন্দনাইশ এলাহবাদ জাহাগীরিয়া শাহ্সুফি দরবার শরীফের অনুসারী। পৃথিবীর কোনও প্রান্তে চাঁদ দেখা গেলে তার সঙ্গে মিলিয়ে রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহাসহ যাবতীয় ধর্মীয় আচার পালন করছেন এই মতের অনুসারীরা। বরিশাল নগরীর তাজকাঠীর হাজী বাড়ী শাহসুফি জাহাগীরিয়া জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্য বছরের চেয়ে এবারের জামাতে মুসুল্লিদের উপস্থিতি ছিল কম।
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানান, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে শেরপুর জেলার সাতটি গ্রামে ঈদুল আজহা পালিত হয়েছে। সদর উপজেলার উত্তর চরখারচর ও দক্ষিণ চরখারচর, নালিতাবাড়ী উপজেলার নন্নী পশ্চিমপাড়া ও গোবিন্দনগর ছয়আনি পাড়া, ঝিনাইগাতি উপজেলার বনগাঁও চতল এবং নকলা উপজেলার নারায়নখোলা ও চরকৈয়া গ্রামের বাসিন্দারা ঈদ উদযাপন করেন।
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানান ফতুল্লায় পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ ও পশু কোরবানিসহ ঈদ উদযাপন করেছেন ‘জাহাগিরিয়া তরিকার’ অনুসারীরা। বেলা এগারোটায় সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার লামাপাড়া এলাকায় হযরত শাহ্ সুফি মমতাজিয়া এতিমখানা ও হেফজখানা মাদ্রাসায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করে ঈদ উদযাপন করেন তারা। এই ঈদ জামাতে ইমামতি করেন মুফতি মাওলানা আনোয়ার হোসেন শুভ। ঢাকার কেরানীগঞ্জ, ডেমরা, সাভার, গাজীপুরের টঙ্গী ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলা থেকে শত শত মুসুল্লি এসে ঈদ জামাতে অংশ নেন।
পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের উত্তর কামারপাড়া জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে এ জামাতে চার পরিবারের মাত্র সাত জন মুসল্লি অংশ নেন। তবে একদিন আগে ঈদের জামাত আদায়ের বিষয়টিতে ওই মসজিদের অধিকাংশ মুসল্লি বিরোধিতা করেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয়পক্ষকে শান্ত করে। পরে পুলিশের পাহারায় ওই সাত মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন।
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, জেলার সাতটি স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে সদর উপজেলার ভাড়ুখালী বাজারে সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত ঈদ জামাতে ইমামতি করেন মো. মাহবুবুর রহমান। এছাড়া সদর উপজেলার বাউখোলা, তালার ইসলামকাটি ও শ্যামনগরের কাশিমারীসহ সাত জায়গায় ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। নামাজের পরে সামর্থ্য অনুযায়ী কোরবানি দেন মুসল্লিরা।
দিনাজপুরের হিলি প্রতিনিধি জানান, চাঁদ দেখার ওপর ভিত্তি করে বুধবার (২১ জুলাই) সারাদেশে ঈদুল আজহা উদযাপন হবে। তবে এর একদিন আগেই মঙ্গলবার বিরামপুরে সৌদিআরবের সঙ্গে মিল রেখে দুটি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামে ঈদুল আজহার জামাত হয়েছে। বিগত কয়েকবছর ধরে ওই গ্রামগুলোতে সৌদির সঙ্গে ‍মিল রেখে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা পালিত হয়ে আসছে।
গাজীপুর প্রতিনিধি জানান সদর উপজেলার পূর্বডগরী (দক্ষিণ পাড়া) দীগি চালা গ্রামে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৭টায় গাজীপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের ওই গ্রামের দারুল ইরফান দরবার শরীফ জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। তবে বুধবার (২১ জুলাই) মুসল্লিরা পশু কোরবানি দেবেন। জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন-আল-রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
(ঊষার আলো-এমএনএস)