দৌলতপুর ডাক-হাঁকেও মিলছেনা আমের ক্রেতা, ব্যবসায়ীরা হতাশায়

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো প্রতিবেদক : সবসময়ই বাজারে ফলের তালিকায় দৃশ্যমান আপেল, আঙ্গুর, বেদানা, মালটা, খেজুর, পেয়ারা, আম, আনারস, কলাসহ নানা ধরনের ফল দেখা যায়।
নগরীর দৌলতপুর ফলবাজারে ফলের তালিকায় বেশ জনপ্রিয় ফলের রাজা আমের মৌসুম শেষে কারণে সমগ্র বাজার জুড়ে বিশেষ দৌলতপুর কাচাবাজারে বিশাল অংশ জুড়ে গড়াগড়ি খাচ্ছে, বিছিয়ে দেয়া হয়েছে মাটিতে। এক কথায় বলতে গেলে ব্যবসায়ীরা পানির দরে বিক্রি করার চেষ্টা করলেও দেখা মিলছেনা কাংক্ষিত ক্রেতার, যে কারণে আম বিক্রি করতে গিয়ে অনেকটাই নাজেহাল হতে হচ্ছে ব্যবসায়ীরা।
দৌলতপুর ফল বাজারের দোকানগুলোসহ ফুতপাতে ফলের দোকানগুলোতে থরে বিথরে সাজানো হয়েছে রকমারী জাতের পাঁকা আম। যার মধ্যে হয়েছে হাড়িভাঙ্গা, দিনাজপুরের রুপালী, হিমসাগর, রাজশাহীর আশ্রনা, ফজলিসহ দিনাজপুরের নানা জাতের গুটি আম। বর্তমানে প্রাপ্ত এই গুটি আমকে বর্তমানে ব্যবসায়ীরা নানা নাম বলে ক্রেতাদের নিকট বিক্রি করছে বলে জানিয়েছি একাধিক সূত্র। গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে খুচরা বাজারসহ পাইকারী আড়ৎ গুলোতে আমের সরবরাহ করোনা প্রকোপ আর লকডাউনের কারণে পানির দরে আমের দাম গেলেও বাজারে ফল কিনতে আসা ক্রেতাদের আম কেনার আগ্রহ খুবই কম। আম ব্যবসায়ী মনির হোসেন জানান, স্থানীয় আম শেষ হওয়ার দরুন আম ব্যবসায়ীরা বর্তমানে খুলনা আর দৌলতপুরের স্থানীয় পাইকারী আড়ৎ হতে রুপালী ১৬ হতে ২ হাজার টাকা মণ, ফজলি ১২০০ টাকা মন, আশ্রীনা ৭০০ টাকা মণ কিনে এনে খুচরা বাজারে বিক্রি করছে খুটরা ব্যবসায়ীরা।
তিনি জানান, বাজারে আমের দাম না থাকার কারণ হলো আড়ৎ হতে মণকে মণ আম কিনে এনে ঘরে রাখি। আম যেহেতু দ্রুতই পচনশীল, তাই প্রত্যেক ব্যবসায়ীরা ক্ষতির আর মারাত্বক লকসানের ভয়ে নানা অফার আর কম দামে বিক্রিত করছে আম, তাই দৌলতপুর বাজারের সর্বত্র আম ব্যবসায় ধ্বস নেমেছে। দাম হাতের নাগালে থাকলে মিলছেনা কাংক্ষিত ক্রেতা।
সরেজমিনে শনিবার (১০ জুলাই) আশ্রীনা আম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৩০ টাকা তবে ৪ কেজি কিনলে ১০০ টাকা, ফজলী প্রতি কেজি ৪০ টাকা তবে ৩ কেজি নিলে ১০০ টাকা, রুপালী বিক্রি হচ্ছে ৪০ হতে ৫০ টাকা। তাছাড়া গুটি জাতের আম ৪ কেজি মাত্র ১০০ টাকায়। ক্রেতা রুম্মান বলেন, ব্যবসায়ী আম সস্তায় বিক্রি হচ্ছে ঠিকই তবে নানা গুটি জাতের আম ভ্যারাইটিজ নাম দিয়ে বিক্রি করেছে। তবে আম সস্তা হলেও কোনো কোনো আম মিষ্টি আর ভেতরে অধিকাংশ টক। উপরে লাল হলেও ভিতরে সাদা। সবমিলিয়ে দৌলতপুর গড়াগড়ি খাচ্ছে আম, ডাক হাঁকে মিলছেনা ক্রেতা।
(ঊষার আলো-এমএনএস)