দৌলতপুর মুহসীন মহাসড়ক সম্মুখ জলবদ্ধতায় বাড়ছে ডেঙ্গু আতংক

সর্বশেষ আপডেটঃ

উষার আলো প্রতিবেদক : নগরীর দৌলতপুর মুহসীন মোড়স্থ যশোর-খুলনা মেইন সড়কের পশ্চিমপাশের ড্রেনগুলোতে পারি নিষ্কাষনের অভাবে সর্বক্ষণ পানি জমাট হয়ে থাকার দরুন মশা বিস্তারের আতুর ঘরে পরিণত হয়েছে। তাছাড়া ড্রেনগুলোর মধ্যে বিভিন্ন প্লাটিকের দ্রবাদি, পলিথিন, হোটেলের ব্যবহৃত বর্জ্যসহ ময়লা আবর্জনায় পরিপূর্ণ। যে কারণে মশার লার্ভা জন্মনো উপদ্রব বৃদ্ধিসহ ময়লা পঁচে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হচ্ছে। এতে করে যেমন আতংক বাড়ছে ডেঙ্গুর তেমনি অপরদিকে চলাচলরত পথচারীসহ আশাপাশের ব্যবসায়ীদের চরম দুর্ভোগে পোহাতে হচ্ছে। সন্ধ্যাসহ দিনের বেলাও মশার আক্রমণের অতিষ্ট হয়ে উঠছে সর্বমহল।

ব্যবসায়ী আলমগীর জানান, মেইন রাস্তার সামনে এমন জমাট বাধা পানি দেখেও কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করেনা। দীর্ঘদিন জলাবদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকে আর বর্ষায় তো কথায় নেই। তাছাড়া প্রতিনিয়ত হোটেলগুলোর আর্বজনা তো ফেলেই। ড্রেনে অপরিস্কার ও পলিথিন সহ বিভিন্ন প্রকার আবর্জনা থাকায় পানির প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে, যার কারণে প্রতিনিয়ত জলবন্ধতা লেগেই থাকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চা ব্যবসায়ী বলেন, ড্রেনগুলো খুব কমই পরিষ্কার করা হয়, নিয়মিত পরিষ্কার না করার দরুন এখানে জলবদ্ধতা লেগে থাকে। একবারও পরিস্কার করা হয় না। ময়লা আবর্জনা ড্রেনে ফেলার ফলে মশা তো বাড়ছেই সেই সাথে মশার নিষধের ওষুধ ও তেমন প্রয়োগ না করার ফলে ব্যাপক মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পায়।

এ ব্যাপারে কেসিসি’র ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাষ্টার আব্দুস সালামের আন্তরিকতার ঘাটতি থাকলেও বর্জ্য ব্যবস্থাপণার দায়িত্ব থাকা কর্মকর্তা বা কর্মচারী আন্তরিকতার ঘাটতির কারণে মূল সড়কের এই বেহাল দশা। জলবদ্ধতা নিরসন, ময়লা-আর্বজনা উত্তোলন সহ মশা নিধনে গৃহীত পদক্ষেপ নেয়া হোক এমনই প্রত্যাশা এলাকাবাসীসহ রাস্তায় চলাচলরত পথচারী ও ব্যবসায়ীদের।

(ঊষার আলো-এমএনএস)