নিজের ব্যর্থতা ঢাকতে রাজনৈতিক বৈরিতা ও বিরোধকে উসকানি দিচ্ছে সরকার: মঞ্জু

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, সরকার নিজের ব্যর্থতা ঢাকতে রাজনৈতিক বৈরিতা ও বিরোধকে ক্রমান্বয়ে উসকানি দিয়ে চলেছে। গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংস্কৃতি জোরদার করার পরিবর্তে ঘৃণার রাজনীতিকে জোরদার করে চলেছে। করোনা দুর্যোগ ও বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে যখন সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দল ও জনগণকে আস্থায় নেয়ার কথা, তখন সরকার রাজনৈতিক বিদ্বেষ ও অসহিষ্ণুতা আরও বাড়িয়ে তুলছে। অপ্রয়োজনীয়ভাবে রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়িয়ে দিচ্ছে। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) দুপুর ২টায় বিএনপির করোনা কল সেন্টারে ন্যাশনাল টিচার্স এ্যাসোসিয়েশন (এনটিএ) পক্ষে প্রফেসর ড. রেজাউল করিম, প্রফেসর ড. নাজমুস সাদাত, প্রফেসর ড. এস এম আব্দুল আউয়াল প্রদত্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার গ্রহনকালে তিনি এ কথা বলেন।

মঞ্জু বলেন, দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সরকার ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ভয়ংকর ক্ষতি করছে। লকডাউন, কঠোর লকডাউন সবকিছুই প্রত্যাহার করেছেন। সবকিছুই স্বাভাবিকভাবে নিয়মে চলছে অথচ বন্ধ রয়েছে শুধুমাত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সুকৌশলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধবংস করার নীলনকশা করছে। অবৈধ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নে সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে না। তিনি শিগগিরই স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারকে জবর দখলকারী সরকার অভিহিত করে সাবেক সাংসদ মঞ্জু আরো বলেন, তারা শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই বন্ধ নয়; শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধবংস করে ফেলেছে। বিশ্বের যে সব দেশে করোনা মহামারি আকারে ছিল, সে সব দেশেও এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধ্বংস হচ্ছে। অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের অনিশ্চিত ভবিষৎ নিয়ে চিন্তিত। পড়ার টেবিল ছেড়ে শিক্ষার্থীরা সারাদিন গেমস, খারাপ চিত্র নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে শিক্ষার্থীরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, জাফরুল্লাহ খান সাচ্চু, রেহেনা আক্তার, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মহিবুজ্জামান কচি, হাসানুর রশিদ মিরাজ, মিজানুর রহমান মিলটন, বদরুল আনাম, মেজবাহ উদ্দীন মিজু, খান শহিদুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম লিটন, জামাল উদ্দীন মোড়ল, সেলিম বড়মিয়া, শামীম আশরাফ, মেজবাহ উল আলম পিন্টু, ফিরোজ আহমেদ, এবাদুল হক, সাজ্জাত হোসেন জিতু, মাসুদ রুমি, তুহিন ইসলাম, হারুন প্রমূখ।

(ঊষার আলো-এমএনএস)