নেইমারদের উড়িয়ে ফাইনালে ম্যানসিটি

সর্বশেষ আপডেটঃ
24
0

ক্রীড়া ডেস্ক : পার্ক ডি প্রিন্সেসে প্রথম লেগে জয়ের পর মানসিকভাবে বেশ এগিয়েই ছিলো ম্যানসিটি। এর উপর তরুণ তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে ইনজুরি সেরে মাঠে নামার বেশ সম্ভাবনা থাকলেও সেটি হয়ে ওঠেনি। ফলাফল হিসেবে মরিশিও পোশেত্তিনো হেরেছেন দ্বিতীয় লেগ সেমিফাইনালেও, ফলে মোট ব্যবধান ৪-১ গোলে দাঁড়িয়েছে।
১৯৭০ সালে গ্রোনিক জাবরেজের বিপক্ষে ফাইনাল খেলে কাপ জিতেছিলো ম্যানচেস্টার সিটি। এরপর তারা ফাইনালে নামবে ইস্তানবুলে, চলতি মাসের আগামী ২৯ তারিখ। মাঝে পার হয়েছে ৫১ বছর। প্রথম লেগে পিএসজির বিপক্ষে ২-১ গোলে জয়ের পর গতকাল ইতেহাদে ২-০ গোলে জিতে ফাইনালের স্বপ্নজয়ের অপেক্ষায় চূড়ান্ত পরীক্ষায় নামার যোগ্যতাও অর্জন করেছে পেপ গার্দিওলার দল।
প্রথম থেকেই গোলের আশায় হন্যে হয়ে থাকা সফরকারী পিএসজি ষষ্ঠ মিনিটে পেনাল্টির বাঁশি পায়। কিন্তু ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি সেই আবেদন নাকচ করে দেন। এর পাঁচ মিনিট পরেই কেভিন ডি ব্রুইনের শট ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন মার্কুইনহোস, কিন্তু সেটি সোজা রিয়াদ মাহারেজের পায়ে জমা হলে দুর্দান্ত শটে গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে পরাস্ত করে জালে বল জড়ান তিনি। দুই মিনিট পরেই মার্কুইনহোসের একটি হেড বারে লেগে ফিরে আসে। কিছুক্ষণ পর এডারসনের পাস কেড়ে নেয়া ডি মারিয়া শট নিলে সেটিও লক্ষ্যে থাকেনি। প্রথমার্ধে আর কোনো সম্ভাবনা তৈরি করতে পারেনি দুই দল।
দ্বিতীয়ার্ধে পিএসজির আক্রমণ ঠেকিয়ে দেয়ার জন্য যেন দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন রক্ষণভাগের তারকা রুবেন ডিয়াজ। নিকোলাস ওটামেন্ডির সাথে বেশ কিছু অর্থ খরচ করে এই তারকা কাল প্রতিপক্ষকে লক্ষ্যে রাখতে দেননি কোনো শট, পারতপক্ষে চাপে ছিলোনা ম্যানসিটির গোলরক্ষকও।
প্রথম লেগে দলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করা রিয়াদ মাহারেজ আজও তার দ্বিতীয় গোল করেন ৬৩তম মিনিটে, ফিল ফোডেনের পাস থেকে। ২-০ গোলে এগিয়ে যাবার পর অবশ্য লাল কার্ডের দেখা পেয়েছেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। সিটি অধিনায়ক ফার্নান্দিনহোকে পায়ে পাড়া দিয়ে হাতাহাতিতে জড়ান তিনি। এমনকি ১০ জনের দল পিএসজি ৭৭তম মিনিটে আরও পেছাতে পারতো যদি ফোডেনের শট বারে লেগে না ফিরে আসতো।
সব মিলিয়ে বেশ স্বস্তি নিয়েই ফাইনালের উচ্ছ্বাসে মেতেছে ম্যানচেস্টার সিটি। আজ বুধবার রাতে সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগে মুখোমুখি হবে চেলসি এবং রিয়াল মাদ্রিদ। আলফ্রেডো ডি স্টেফানোতে প্রথম লেগ ১-১ গোলে ড্র হলেও অ্যাওয়ে গোলের সুবিধায় এগিয়ে থাকবে চেলসিই। ফাইনালে দুই দলের যাদেরই প্রতিপক্ষ হিসেবে পান না কেন, গার্দিওলার নজর থাকবে চ্যাম্পিয়নস লিগের ট্রফির দিকে সেটুকু নিশ্চিত।

(ঊষার আলো-এমএনএস)

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ