পাকিস্তানী মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গীবাদ ও চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : বাংলাদেশ সচেতন নাগরিক কমিটির উদ্যোগে শনিবার (১৪ আগস্ট) দুপুর ১২টায় পিকচার প্যালেস মোড়ে ‘রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ শীর্ষক স্লোগানে পাকিস্তানী মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গীবাদ ও চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালের দেশ স্বাধীনের পর সূক্ষ্ম ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যার পরবর্তীতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় থাকাকালীন প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা মদতপুষ্ট হয়ে মন্দির-গির্জা-প্যাগোডা, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ঘরবাড়ি ভাংচুর-লুণ্ঠন, মা-বোনদের ধর্ষণ, পুরোহিত, পাদ্রী ও ভিক্ষুদের হত্যাসহ বিভিন্ন অপতৎপরতা ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে। সর্বশেষ খুলনার রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের শিয়ালী গ্রামে ঘাপটি মেরে থাকা পাকিস্তান প্রীতির সাম্প্রদায়িক শক্তি কর্তৃক হিন্দুদের ঘরবাড়ি, দেবালয়ে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর-লুটপাট ও নির্যাতন চালায়। দুঃখের বিষয় স্বাধীনতার এই ৫০ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পরও এই সকল পাকিস্তানী মদতপুষ্ট সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদ ও চরমপন্থীদের আমরা বার বার রুখতে ব্যর্থ হচ্ছি। আজকের মানববন্ধন থেকে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে অপশক্তির বিরুদ্বে রুখে দাঁড়িয়ে এদের ধ্বংস করে দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান হয় এবং শিয়ালী গ্রামের এই ধ্বংসযজ্ঞের সাথে যারা জড়িত তাদের সঠিক তদন্তপূর্বক দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থার জোর দাবি জানান হয়। সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির, বিগ্রহ পুনঃ নির্মাণ, ব্যবসায়ীদের এবং যে সকল বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট হয়েছে তাদের ক্ষতিপূরণসহ এলাকায় আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর মাধ্যমে দ্রুত পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, খুলনা মহানগর সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কুণ্ডু। খুলনা মহানগর পূজা পরিষদের কোষাধ্যক্ষ রতন কুমার নাথের পরিচালনায় মানবন্ধনে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও পূজা পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা বিজয় কুমার ঘোষ, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, খুলনা মহানগর সভাপতি বীরেন্দ্রনাথ ঘোষ, পূজা উদযাপন পরিষদের খুলনা জেলা সভাপতি কৃষ্ণপদ দাশ, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শ্যামল দাস, মহানগর হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সাহা, সহ-সভাপতি সমর কুমার কুণ্ডু, খুলনা বাজার ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহাগ দেওয়ান, বাংলাদেশ যুব ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রবার্ট নিক্সন ঘোষ, সহ-সভাপতি ও পূজা পরিষদের মহানগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ দে মিঠু, জেলা পূজা পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিমান সাহা, যুব ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি দেবাশিষ রায়, জেলা যুব ঐক্য পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি স্বপন রায়, বাংলাদেশ যুব মৈত্রী, খুলনা জেলা নেতা অজয় কুমার দে, বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদ, খুলনা মহানগর সাধারণ সম্পাদক সুশীল দাস, ছাত্র ঐক্য পরিষদ, খুলনা মহানগর আহ্বায়ক পাপ্পু সরকার, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ খুলনা মহানগর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সুশান্ত ব্যানার্জী, উজ্জল ব্যানার্জী, ভবেশ সাহা, সত্যপ্রিয় সোম বলাই, উজ্জল রায়, মাণিক শীল, বিদ্যুৎ নন্দী, অলোক দে, রবিন দাস, সজল দাস, সনৎ বকসী, লিটন চক্রবর্ত্তী, মলয় মুখার্জী, তাপস তালুকদার প্রমুখ।

(ঊষার আলো-এমএনএস)