প্রজনন সময়ে হিংস্র হয়ে উঠেছে সংঘবদ্ধ কুকুর, আতংকে পথচারী

সর্বশেষ আপডেটঃ

মোঃ আশিকুর রহমান : পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় কুকুর গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলেও প্রজননের এই সময়ে বেশ হিংস্র আর আক্রমনাত্বক হয়ে উঠেছে। যে কারণে এই সময়টিতে বেশ আতংকগ্রস্ত হয়ে উঠেছে সর্বমহল। সম্প্রতি নগরীর দৌলতপুর এলাকার জুড়ে মোড়ে-মোড়ে চলছে বেওয়ারিশ কুকুরের মিছিল। একটু গভীর রাতে একা-একা রাস্তা দিয়ে চলতে গেলে বেওয়ারিশ এই কুকুরের সংঘবদ্ধ আক্রমনের ভয়ে ভীষন শংকিত এলাকায় বসবাসরত পথচারী। রাত যত গভীর হতে থাকে এদের ভয়ানক হিংস্রতা তত বৃদ্ধি পায়। বিষয়টি যাদের দেখার কথা তারা দেখছে ঠিকই, কিন্তু আদালতের নির্দেশনায় রয়েছে নিরব। কেসিসি’র ভ্যাটেনরী বিভাগের পাওয়া তথ্য মতে, কুকুরের প্রজননের সময়কাল দুই মাস। সাধারণ বাংলা বর্ষের আর্শ্বিন ও কার্তিক মাস প্রজনেনর সময়। আর এই সময় সাধারণত অন্য সময়ের তুলনায় কুকুর বেশ হিংস্র আর ভয়ানক হয়ে ওঠে।

সরেজমিনে, এলাকার মোড়ে মোড়ে ৬/৮টি বেওয়ারিশ কুকুর সংঘবদ্ধভাবে অবস্থান করে। বিশেষ করে আজ্ঞুমান রোড়, ঋষিপাড়া মোড়, কল্পতরু রোড, হোসেন শাহ রোডের এদের বিচরণ চোখে পড়ার মতো। এদের পাশ ঘেষে পথচারিরা যেতে গেলে অন্ধকার আর ঘন কুয়াশার মধ্যে হঠাৎ অতর্কিত হামলা চালায় পথচারিদের ওপর। ভীত সন্ত্রন্ত পথচারিরা আংতঙ্কের মধ্যে দিয়ে পথ চলাচল করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আজ্ঞুমান রোডের বাসিন্দা বলেন, আজ্ঞুমান রোডসহ মোড়ে ৭/৮টি বেওয়ারিশ কুকুর সর্বদা অবস্থান করে। বর্তমান কুকুরের বংশ বিস্তারের সময়। এই সময়ে কুকুর অত্যন্ত হিংস্ত্র হয়ে উঠেছে। কয়েকদিন আগে মাসুম নামের এক ছেলের উপর হামলা চালিয়ে জখম করে। গভীর রাতে সংঘবদ্ধভাবে কুকুরের ডাকে এলাকাবাসীর ঘুমের ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে।

দৌলতপুর বটতলার পান দোকানদার রফিক বলেন, আমার বাড়ী পালপাড়া ইসলামবাগ। দোকান বন্ধ করে বেশ গভীর রাত হয়ে যায়। প্রায় কুকুরের তোপের মুখে পড়তে হয়।

৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী বলেন, যে বর্তমানে কুকুরের প্রজনন প্রিয়োড চলছে। সময় সাধারণত এই প্রানী একটু হিংস্র প্রকৃতির হয়ে উঠবে এটাই স্বাভাবিক। এই বেওয়ারিশ কুকুর নিধনে আমার আন্তরিকতার কোন ঘাটতি নাই। তবে উচ্চ আদালতে কুকুর নিধনে নিষেধাজ্ঞার কারণে কুকুর নিধনে ব্যবস্থা গ্রহনে অনেকটাই বাধাগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। তবে পাগলা কুকুরের ব্যাপারে কোনো অভিযোগ দিলে তার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ভেটানারি সার্জন ডাঃ রেজাউল করিম জানান, কুকুরের প্রজননের সময়কাল দুই মাস। সাধারণ বাংলা বর্ষের আর্শ্বিন ও কার্তিক মাস প্রজনেনর সময়। তবে বর্তমানে পরিবেশ আর জলবায়ূর পরিবর্তনে কুকুরের প্রজনের সময় কাল এগিয়ে এসেছে। বর্তমানে প্রজনের সময়কাল হলো ভাদ্র আর আর্শ্বিন মাস। আর এই সময় সাধারণত অন্য সময়ের তুলনায় কুকুর বেশ হিংস্র আর ভয়ানক হয়ে ওঠে। এই সময়ে সকলকে বাড়তি সর্তক থাকতে হবে। উচ্চ আদালতের আদেশের কারণে কেসিসি কুকুর মারতে পারছে না। তবে অসুস্থ্য ও পাগলা কুকুরের বিষয়ে অভিযোগ জানালে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

(ঊষার আলো-এমএনএস)