বন্যা পূর্বাভাস

বাড়ছে নদ-নদীর পানি, প্লাবিত হতে শুরু করেছে নিচু এলাকা

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো রিপোর্ট : কয়েক দিনের ভারি বৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দেশের সব নদ-নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরই মধ্যে চরাঞ্চল ও নিচু এলাকা প্লাবিত হতে শুরু করেছে, ভাঙন বেড়েছে নদ-নদীতে।
বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে দেশের বেশ কিছু স্থানে আকস্মিক বন্যা হতে পারে বলে।
গতকালের নদ-নদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাসে বলা হয়, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রের নদীর পানি আগামী ৩ দিন পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে। পদ্মা নদীর পানি আগামী ২ দিন পর্যন্ত বাড়তে পারে। সুরমা ব্যতীত দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ৩ দিন পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।
বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের গাণিতিক মডেলের তথ্য অনুযায়ী, আগামী ৭২ ঘণ্টায় দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল ও তত্সংলগ্ন ভারতের হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, সিকিম, মেঘালয় ও ত্রিপুরা প্রদেশের স্থানগুলোতে ভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। এর ফলে এই সময়ে দেশের উত্তরাঞ্চলের ধরলা, দুধকুমার, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মেঘনা অববাহিকা এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় পার্বত্য অববাহিকার প্রধান নদ-নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।
তবে আগামী ৩ দিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বৃষ্টিপাত কমতে পারে বলে জানানো হয়েছে। আবহাওয়াবিদরা বলেছেন, বর্তমানে যেভাবে বৃষ্টিপাত হচ্ছে, তা আরো ২ দিন থাকতে পারে। এরপর বৃষ্টিপাত কিছুটা কমে যেতে পারে।
আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ জায়গায় এবং রংপুর ও খুলনা বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ সহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। গতকাল দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে কক্সবাজারে, ১১০ মিলিমিটার।
গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে সিরাজগঞ্জের কাছে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে (হার্ড পয়েন্টে) পানি ৪৬ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপত্সীমার ১.৪১ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার চরাঞ্চল ও নদীতীরবর্তী নিম্ন এলাকাগুলো প্লাবিত হতে শুরু করেছে, এর ফলে দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন। এরই মধ্যে জেলার সদর, চৌহালী, শাহজাদপুর ও কাজিপুর উপজেলার নদীর তীরবর্তী অঞ্চলে ভাঙন শুরু হয়েছে।
সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম বলেছেন, টানা বৃষ্টিপাত এবং উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে কয়েক দিন ধরেই যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগামী কয়েক দিন পানি বৃদ্ধি পেতে থাকলে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করতে পারে।
রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পদ্মা নদীর পানি ও স্রোতের তীব্রতা বেড়ে চলছে। গতকাল সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে ১৮ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বিপত্সীমার ১ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিসের কর্মকর্তা মো. ইদ্রিস আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এভাবে পানি বাড়তে থাকলে কয়েক দিনের মধ্যে পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে পানির স্তর বিপত্সীমা অতিক্রম করবে। এদিকে পদ্মায় পানি বেড়ে গোয়ালন্দ উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। স্রোতের কারণে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলকারী ফেরিগুলো স্বাভাবিক গতিতে চলতে পারছে না।
চট্টগ্রামের বাঁশখালীর পূর্বাঞ্চলের গ্রামগুলোতে টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে ছিন্নভিন্ন হয়েছে গ্রামীণ বসতি, মৎস্য খামার ও ফসলের ক্ষেত। কোটি কোটি টাকার মাছ ও ফসলের ক্ষতি হয়েছে। পাহাড়ি ঢলে ভেসে গেছে রাস্তা, পুকুরের মাছ, ফসলের ক্ষেত, ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি।
শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলা সদর, হাতিবান্ধা ও ধানশাইল ইউনিয়নের প্রায় ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ৩ দিন ধরে এসব এলাকার লোকজন বিপাকে থাকলেও সরকারি কিংবা বেসরকারিভাবে কোনো ত্রাণ তৎপরতা নেই। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও তাদের পাশে দাঁড়াননি। বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসক মো. মোমিনুর রশীদ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনকালে ৫০টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন। ত্রাণ বলতে এ পর্যন্তই। সবাই শুধু পানি নেমে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে।
পাহাড়ি ঢলে নালিতাবাড়ী উপজেলায় ৩০০ হেক্টর জমির আউশ ধান ও ১০০ হেক্টর জমির আমন বীজতলা তলিয়ে গেছে গেছে এবং ১ হাজার ১১৫টি পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। ভোগাই নদীর তীর রক্ষা বাঁধের ৫টি পয়েন্টর প্রায় ৭ কিলোমিটার বাঁধ আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

(ঊষার আলো- এম.এইচ)