রাঙ্গামাটির ঝুলন্ত ব্রিজ পানির নিচে

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : রাঙামাটির ঝুলন্ত ব্রিজটি পানিতে ডুবে তলিয়ে গেছে। একটানা প্রবল বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের পানি জমার কারণে কাপ্তাই হ্রদের পানি বেড়ে গিয়ে রাঙামাটির পর্যটনের পিকনিক স্পট ও মনোরম ঝুলন্ত ব্রিজের পাটাতন ডুবে গেছে। ঝুলন্ত ব্রিজটি এখন ডুবন্ত সেতুতে পরিণত হয়েছে। রাঙামাটিতে ঘুরতে আসা পযর্টকরা বেড়াতে এসে হতাশাগ্রস্থ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পানিতে ডুবে যাওয়া ঝুলন্ত ব্রিজটি দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে আসা-যাওয়া করছে ওপারে বসবাসরত স্থানীয়রা। এমনকি রাঙামাটিতে দেখতে আসা পযর্টকরা ব্রিজে উঠতে না পারায় হতাশা নিয়ে ফিরে যাচ্ছে।

কুমিল্লা ও চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটক মোঃ সাজেদুল ইসলাম, ইমন, রাজিব, সুজন জানান, ঝুলন্ত ব্রিজে দিয়ে ওপারে ঘুরে আসাটা অন্য রকম উপভোগ হতো। কিন্তু এবারে পাহাড়ি অঞ্চলে হঠাৎ প্রবল বৃষ্টিতে এমনটি অবস্থা তা আগে জানলে আসতো না। সেরকম হ্রদের সৌন্দর্য্য উপভোগ করা যায়নি। ঝুলন্ত ব্রিজের পাটাতন পানিতে তলিয়ে গিয়ে আর ওপারে যাওয়া হলো। রাঙামাটিতে বেড়াতে আসাটা সম্পূর্ণ ভেস্তে গেল।

এদিকে রাঙামাটি পর্যটন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপক সৃজন বিকাশ বড়ুয়া বলেছেন, গত মাসের ঠিক এই তারিখে (১৯ আগষ্ট) সরকারের নির্দেশে পর্যটনখাতকে খুলে দেয়া হয়েছে। কিন্তু কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধিতে রাঙামাটি ঝুলন্ত ব্রিজটি আজ (১৯ সেপ্টেম্বর) ঠিক একমাস পর আবার রাঙামাটি পর্যটন ঝুলন্ত ব্রিজটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে শনিবার সন্ধ্যা পর ঝুলন্ত ব্রিজের পাটাতন পানির নিচে তলিয়ে গেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হয়। ব্রিজটি ডুবে যাওয়ায় পর্যটকদের প্রবেশে সাময়িকভাবে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। কাপ্তাই হ্রদের পানি কমে গেলে পুনরায় পর্যটকদের ব্রিজের উপরে উঠানামা উন্মুক্ত করা হবে।

প্রসঙ্গত, বিগত সত্তর দশকে সরকার রাঙামাটি পার্বত্য জেলাকে পর্যটন এলাকা চিহ্নিত করে ঘোষণা দেয়। তারই ধারাবাহিকতায় বিগত ১৯৮৬ সালে জেলা শহরের দক্ষিণে তবলছড়ি অঞ্চলে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন ৩৩৫ ফুট দীর্ঘ সেতুটি নির্মাণ করে। এসুত্রে এপার হতে ওপারে পর্যটন কর্পোরেশন পিকনিক স্পট হিসেবে একটি ঝুলন্ত ব্রিজটি দু’টি পাহাড়ের মাঝখানে নির্মাণ করা হয়। প্রচারিত হয় রাঙামাটি একটি ঝুলন্ত ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। তখনি থেকে রাঙামাটিতে দেশ-বিদেশ থেকে হাজারো পর্যটক আসতে থাকে। এটি অনেক আকর্ষণীয় হয়ে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। ঝুলন্ত ব্রিজের চারিদিকে কাপ্তাই হ্রদের স্বচ্ছ জলরাশি ঘেরা রয়েছে ছোট-বড় নৈসর্গিক সবুজ পাহাড় ও ছোট ছোট পাহাড়। এ নিয়ে বিস্তৃত রাঙামাটি পর্যটন ঝুলন্ত ব্রিজের মনোরম প্রাকৃতিক নৈসর্গিক সৌর্ন্দয্য ঘিরে রয়েছে পুরো রাঙামাটি জুড়ে।

(ঊষার আলো-এমএনএস)