রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে আ’লীগের কৃতজ্ঞতা; উপাচার্যকে অভিনন্দন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো রিপোর্ট : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২তম উপাচার্য হিসেবে প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেনকে নিযুক্ত করায় রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর মো: আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন খুলনা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। একই সাথে উপাচার্য হিসেবে যোগদান করায় প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনায় শিক্ষিতের হার বৃদ্ধিসহ দক্ষিণাঞ্চলের জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছেন। এই বিশ্ববিদ্যালয় যাতে সুষ্ঠু ও সুশৃংখলভাবে পরিচালিত হয়ে এ অঞ্চলের সন্তানেরা ভালো গবেষক হয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করতে পারে সেজন্যে উপাচার্যকে সর্তক দৃষ্টি রাখতে হবে।

খুবির নতুন ভাইসচ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে শতভাগ শিক্ষিত করে দেশকে উন্নত বিশ্বের কাতারে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করতে চেয়েছিলেন। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে দেয়নি ৭১-এর পরাজিত শত্রু আর ৭৫-এর খুনিরা। আজ জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে তার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আর সে কারণেই আজকে প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেনকে উপাচার্য হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিযুক্ত করা হয়েছে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান উপাচার্য একজন মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষের মানুষ। একই সাথে তিনি এই অঞ্চলের সন্তান। আমরা মনে করি এই অঞ্চলের স্বার্থ সংরক্ষণ এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের মধ্যদিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলবেন। আর এই সফলতার মাধ্যমে দক্ষিণাঞ্চলের শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীরা খুঁজে পাবে তাদের কর্মসংস্থান। স্বনির্ভর দেশ হিসেবে মর্যাদাশীল জাতিতে পরিণত করবে এই প্রতিষ্ঠান, এটাই প্রত্যাশা করেন নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ উপাচার্যকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, শিক্ষার মান উন্নত করতে অত্যন্ত শক্তহাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাল ধরে কাজ করতে হবে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির স্বার্থে আপনার পাশে থাকবে আওয়ামী লীগসহ এ অঞ্চলের জনগোষ্ঠী। আপনার অগ্রগতির সাথে এগিয়ে যাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প-২০৪১। নেতৃবৃন্দ উপাচার্যের সুস্বাস্থ্য ও সফলতা কামনা করেন।

বিবৃতি দাতারা হলেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মানিত নির্বাহী সদস্য ও খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত কুমার অধিকারী।

(ঊষার আলো-এমএনএস)