UsharAlo logo
বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লবণাক্ততার কারণে উপকূলীয় অঞ্চলে বাল্যবিবাহ বাড়ছে

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি
ডিসেম্বর ২০, ২০২৩ ৮:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব ও লবণাক্ততার আগ্রাসনে উপকূলে বাল্যবিবাহ বাড়ছে বলে মনে করেন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ।

তারা বলেছেন, সরকার ও বেসরকারি সংস্থাগুলোর নানামূখী পদক্ষেপ সত্তে ও উপকূলে বাল্যবিয়ে কাঙ্খিত হারে কমছে না। কারণ সেখানে লবণাক্ততা ও পরিবশে বিপর্যয়ের কারণে মানুষ কর্মসংস্থান হারাচ্ছে। সুপেয় পানির সংকট বাড়ছে। সচেতনতার অভাব রয়েছে। ফলে অবিভাবকরা মেয়েদের স্কুলে না পাঠিয়ে শ্বশুর বাড়িতে পাঠাতে বেশি আগ্রহী হচ্ছে।

আজ বুধবার ‘বাল্যবিবাহের শিকার উপকূলের শিশু ও করণীয়’ শীর্ষক এক অনলাইন সংলাপে এ সব কথা বলেন তারা।

বাল্যবিয়ে বন্ধে সামাজিক আন্দোলন জোরদার করার লক্ষ্যে উন্নয়ন সংস্থা ‘ফেইথ ইন একশন’, নাগরিক সংগঠন ‘সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলন’ এবং পার্লামেন্টনিউজ আয়োজিত সংলাপটি সঞ্চালনা করেন সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক নিখিল চন্দ্র ভদ্র।

আলোচনায় অংশ নেন শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক মীর মোহাম্মদ আলী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প কর্মকর্তা হালিমা খানম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, টিম এসোসিয়েটসের টিম লিডার পুলক রাহা, সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থা (স্কাস) চেয়ারম্যান জেসমিন প্রেমা,

নারী প্রগতি সংঘের পরিচালক শাহনাজ সুমী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাকিলা পারভীন, স্ক্যান সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মুকুল, ফেইথ ইন একশনের নির্বাহী পরিচালক নৃপেন বৈদ্য, ইনসিডিন বাংলাদেশের কো-অর্ডিনেটর মো. রফিকুল আলম,

অনির্বাণ লাইব্রেরির সভাপতি প্রধান শিক্ষক রহিমা আক্তার শম্পা, ফ্যামিলি টাইস ফর উইমেন ডেভেলপন্টের নির্বাহী পরিচালক খুজিস্থা বেগম জোনাকি, মহিলা পরিষদের জোৎস্না দত্ত, নাগরিক উদ্যোগের সাকিল আহমেদ, ফেইথ ইন একশনের জ্যাকব টিটো, পাইকগাছা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মো. আব্দুল আজিজ, কিশোর-কিশোরী ক্লাবের রিংকু রানী মন্ডল, সচেতন সংস্থার রিয়াদ হোসেন।

সংলাপে জানানো হয়, ‘ফেইথ ইন একশন’ নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার ও সুরক্ষায় ২০১৯ সালে খুলনা জেলার কয়রা উপজেলায় কাজ শুরু করে।

যা পরবর্তীতে পরিবর্তন হয়ে মুক্তির আহ্বান প্রকল্প নামে কয়রা উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ২৩টি গ্রামে পরিচালিত হচ্ছে। প্রকল্পের আওতায় বাল্যবিবাহ হ্রাস, নারীর ক্ষমতায়ন ও ঝুঁকিপূর্ণ শিশু শ্রম হ্রাসসহ সচেতনমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।