সাগরদাঁড়ির কপোতাক্ষ নদে ২য় নৌকাবাইচ

সর্বশেষ আপডেটঃ

পরেশ দেবনাথ, কেশবপুর : মাঝি-মাল্লাদের মারো টান হেইয়ো, জিতেই যাবে হেইয়ো, এসব আওয়াজ আর হাজার-হাজার দর্শকের আনন্দ উচ্ছাসের মধ্যদিয়ে কেশবপুরের সাগরদাঁড়িতে অনুষ্ঠিত হয় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা।

মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের স্মৃতি বিজড়িত কেশবপুরের সাগরদাঁড়ির কপোতাক্ষ নদে দুর্গাপূজা উপলক্ষে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কপোতাক্ষ নদের চিংড়া নামক স্থান থেকে সাগরদাঁড়ির ডাকবাংলো ঘাট পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার নদে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) বিকেলে মহাকবি মাইকেল মধুসূধন সমাজ কল্যান সংঘের আয়োজনে এই নৌকা বাইচ দেখতে দুপুরের পর থেকেই কপোতাক্ষ নদের দু’পাড়ে শিশু-কিশোর-কিশোরীসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ জমায়েত হতে থাকে। প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী চলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিযোগিতা। বিভিন্ন স্থান থেকে আগত ৮টি নৌকা এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

মধুসূদন সমাজ কল্যাণ সংঘের সভাপতি সুভাষ দেবনাথের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কেশবপুরের সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন, সহ-সভাপতি ও সাগরদাড়ি ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন, কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাগরদাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্তো, ত্রিমোহিনী ইউপি চেয়ারম্যান এস এম আনিছুর রহমান, কেশবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আশরাফ-উজ-জামান খান প্রমুখ।

প্রতিযোগীদের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ধানদিয়া দল, দ্বিতীয় উপজেলার সাগরদাঁড়ি এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করে গোপসেনা দল। প্রতিযোগিতা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

নৌকাবাইচ উপলক্ষে কপোতাক্ষ নদীর দুই প্রান্তে বসে গ্রামীণ মেলা। নদীর দুই পাড়ে নৌকা বাইচ ও মেলায় হাজার হাজার নারী-পুরুষের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। স্থানীয় অনেকেই বলেন, এটা হলো কপোতাক্ষ নদে দ্বিতীয় নৌকা বাইচ।

(ঊষার আলো-এমএনএস)