৪ মে ১৯৭১, মঙ্গলবার

সর্বশেষ আপডেটঃ

মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় পাকবাহিনীর সংঘর্ষ

ঊষার আলো ডেস্ক : ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য কিছু ঘটনা নিয়ে ‌’মুক্তিযুদ্ধ প্রতিদিন’ নামের এই আয়োজন।
যুক্তরাষ্ট্রের বৈদেশিক সম্পর্ক সংক্রান্ত কমিটি বাংলাদেশের যুদ্ধের অবসান না হওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানকে সর্বপ্রকার সামরিক সাহায্য বন্ধ রাখা বিষয়ে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করে। প্রস্তাবে বলা হয়, পূর্ব পাকিস্তানে যুদ্ধ বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানকে সব ধরনের সামরিক সাহায্য বন্ধ রেখে পূর্ব পাকিস্তানে ত্রাণ কাজ শুরু করা হোক।
কর্নেল আতিক ও ক্যাপ্টেন এজাজ-এর নেতৃত্বে পাকবাহিনী বরিশাল থেকে হুলার হাট হয়ে পিরোজপুর প্রবেশ করে তিনদিক থেকে পিরোজপুর শহর আক্রমণ করে। বর্বর হানাদার বাহিনী কালিবাড়ি রোডের দুপাশে মাছিমপুর, পালপাড়া, শিকারপুর, রাজারহাট, কুকারপাড়া, ডুমুর তলা, কদমতলা, নামাজপুর আলমকাঠি, ঢুলিগাতি, রানীপুর, পারেরহাট ও চিংড়াখালি এলাকায় হত্যা, লুট, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগ ক’রে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে।
নিরস্ত্র বাঙালির উপর এই নির্মমতা ছুঁয়ে গেছে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে, আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে চাপের পরও থেকে নেই পাকসেনাদের অত্যাচার
নিরস্ত্র বাঙালির উপর এই নির্মমতা ছুঁয়ে গেছে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে, আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে চাপের পরও থেকে নেই পাকসেনাদের অত্যাচার
পাকহানাদার বাহিনী সিলেটের পুষাইনগর এলাকায় হামলা চালায় এবং নিরীহ ১৫ জন গ্রামবাসী বর্বরদের অত্যাচারে নিহত হয়। ভারতীয় বিএসএফ বাহিনী ও পাকবাহিনীর মধ্যে ফ্ল্যাগ মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। পাকবাহিনী ৩ মে এক সংঘর্ষে মুক্তিযোদ্ধা ইপিআর বাহিনীর গুলিতে ৫০ জন পাকসেনা নিহত হয় বলে জানায়। পাকসেনারা বিএসএফ কর্মকর্তাদের বাঙালি ইপিআরদের তাদের কাছে সমর্পনের আবেদন জানায়। কিন্তু বিএসএফ কর্মকর্তরা ভারতে কোনো ইপিআর সদস্য নেই বলে জানিয়ে দেয়।
শাহ আজিজুর রহমান বলেন, পূর্ণ ও অবাধ গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া রাজনৈতিক দলগুলোকে সর্বাধিক সুযোগ-সুবিধা দিয়েছিলেন। পূর্ব পাকিস্তানের বৃহত্তম দল আওয়ামী লীগ জোর-জবরদস্তি ও প্রতারণার মাধ্যমে সাম্প্রতিক নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। আওয়ামী লীগের ছত্রচ্ছায়ায় সশস্ত্র ও শ্লোগানমুখর উন্মত্ত তথাকথিত রাজনৈতিক কর্মীরা ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে এবং সরকারি-বেসরকারি সংস্থাকে সম্পূর্ণরূপে তাদের আজ্ঞাবহ করে তোলে। তিনি আরো বলেন, পাকিস্তানকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার উদ্দেশ্য ২৫ মার্চ হস্তক্ষেপ করা ছাড়া সেনাবাহিনীর হাতে কোনো বিকল্প ছিল না। সেনাবাহিনীর সময়োচিত হস্তক্ষেপ ও আল্লাহর অশেষ কৃপায় দেশের অর্থনৈতিক জীবনে অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানসমূহের ধ্বংস রোধ হয়েছে। শান্তি কমিটির উদ্যোগে চাঁদপুর স্বাধীনতা-বিরোধীরা মিছিল করে। মিছিলে নেতৃত্ব দেন স্থানীয় শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান এম এ সালাম।
যুক্তরাজ্যের কমন্স সভায় ৪ মে প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথের উপস্থিতিতে পাকিস্তানের প্রতি দেশটির সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিতর্ক হয়। এডওয়ার্ড হিথ নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। তিনি বলেন, পাকিস্তানের অখণ্ডতার প্রতি নজর রেখে দেশটির অভ্যন্তরীণ বিরোধের রাজনৈতিক মীমাংসার জন্য তাঁরা যত দূর সম্ভব চেষ্টা ও সাহায্য করবেন। পূর্ব পাকিস্তানে (বাংলাদেশ) অন্তত ছয় লাখ লোক গৃহহীন হয়েছেন। সংখ্যাটি ক্রমশ বাড়ছে। আগামী দুই দিনের মধ্যে আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে বিমানযোগে প্রথম ব্রিটিশ সাহায্য পাকিস্তানে পাঠানো হবে। এ সাহায্যের কোনো রাজনৈতিক তাৎপর্য নেই। তিনি জানান, পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে কূটনেতিক চ্যানেলে তাঁর যোগাযোগ রয়েছে।
পাকিস্তানের সামরিক সরকার পূর্ব পাকিস্তানে যে নির্যাতন চালাচ্ছে তার জন্য পাকিস্তানকে সব রকম সাহায্য বন্ধ করে দিতে কমন্স সভায় দাবি জানান লেবার পার্টির সদস্য মাইকেল বার্নস। তবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তা নাকচ করে দিয়ে বলেন, পূর্ব পাকিস্তানের পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে সেখানে পর্যবেক্ষক পাঠানো যেতে পারে।
যুক্তরাষ্ট্রের বৈদেশিক সম্পর্কসংক্রান্ত কমিটি পূর্ব পাকিস্তানে (বাংলাদেশ) যুদ্ধের অবসান না হওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানে সামরিক সাহায্য বন্ধ রাখাসংক্রান্ত একটি প্রস্তাব এদিন অনুমোদন করে। যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডি এদিন ত্রাণকার্যের জন্য একটি দলকে অবিলম্বে বিমানে পূর্ব পাকিস্তানে (বাংলাদেশ) পাঠানোর জন্য নিক্সন সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান। তিনি দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তরের সমালোচনা করে বলেন, পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের দুর্গতি দূর করার জন্য পররাষ্ট্র দপ্তর এ পর্যন্ত কিছুই করেনি।
জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সমর সেন এদিন জাতিসংঘ মহাসচিব উ থান্টের দেখা করে বাংলাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। শরণার্থীদের সহযোগিতা নিয়েও তাঁদের কথা হয়।
সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এদিন রেডক্রস জানায়, বাংলাদেশ থেকে ভারতে আসা শরণার্থীদের সাহায্যে এগিয়ে আসার জন্য সারা পৃথিবীর রেডক্রস সোসাইটির কাছে আবেদন জানানো হয়েছিল। এই আবেদনে ১৩টি দেশের রেডক্রস সোসাইটি সাড়া দিয়েছে। দেশগুলো হলো অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, ব্রিটেন, কানাডা, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, জাপান, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র।
মালয়েশিয়ার ডেমোক্রেটিক অ্যাকশন পার্টির সম্পাদক ফ্যান ইউ তেন কুয়ালালামপুরে বলেন, বাংলাদেশে কী ঘটছে তা তাঁর দেশের জনসাধারণকে জানানোর জন্য তাঁরা ব্যাপক প্রচার আন্দোলনে নামবেন। তাঁরা চান, বাংলাদেশের নিরপরাধ মানুষকে নির্দয় ও পরিকল্পিতভাবে হত্যা বন্ধ করতে আন্তর্জাতিকভাবে উদ্যোগ নেওয়া হোক।
বাংলাদেশের পক্ষে: ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জগজীবন রাম বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে ভিন্ন খাতে নিয়ে যাওয়ার কৌশল হিসেবে পাকিস্তান যদি সীমান্তে শত্রুতা আরম্ভ করে তাহলে সমুচিত জবাব পাবে।
ভারত–বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতির একটি প্রতিনিধিদল দিল্লিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের রাজনেতিক উপদেষ্টা লি টি স্টলের সঙ্গে দেখা করেন। পাকিস্তানি সেনারা বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র ব্যবহার করায় যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ দাবি করে তাঁরা স্মারকলিপি দেন। স্টল জানান, তিনি সমিতির বক্তব্য দ্রুত ওয়াশিংটনে পাঠিয়ে দেবেন।
অবরুদ্ধ বাংলাদেশে: বাংলাদেশ সফররত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ জেনারেল আবদুল হামিদ খান এই দিন পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চল পরিদর্শন করেন।
পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সাবেক বিরোধীদলীয় উপনেতা শাহ আজিজুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেন, পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে ভারতের হস্তক্ষেপ আন্তর্জাতিক বিধি ও জাতিসংঘ সনদের পরিপন্থী। পাকিস্তানকে যেকোনো মূল্যে রক্ষা করতে হবে।
চাঁদপুরে শান্তি কমিটির উদ্যোগে এদিন এক মিছিল বের করা হয়। সিলেটের পুষাইনগরে হামলা চালিয়ে ১৫ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে হত্যা করে পাকিস্তানি সেনারা।

(ঊষার আলো-এমএনএস)