লকডাউনের ঘোষণা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : নূরুল করীম

সর্বশেষ আপডেটঃ
29
0

ঊষার আলো ডেস্ক : করোনার দোহাই দিয়ে দ্বিতীয় দফায় সারাদেশে লকডাউন ঘোষণা করা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং এ সিদ্ধান্ত দরিদ্র মানুষের গলার কাটা বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম।
হাউজ বিল্ডিং চত্বরে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর আয়োজিত বৈশ্বিক করোনা মহামারীতে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে দ্বিতীয় ধাপে ঘোষিত দেশব্যাপী লকডাউনের প্রতিবাদে মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ২০২০ সালের ২৬ মার্চ থেকে ঘোষিত লকডাউনের কারণে সাধারণ মানুষের যে ভোগান্তি তৈরি হয়েছিল, তা এখনও শেষ হয়নি। ব্যবসা-বাণিজ্য থেকে আর্থিক সকল খাত নড়বড়ে হয়ে গেছে। এখন নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জনগণের রুটি রুজির ব্যবস্থা ও কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করে দ্বিতীয় ধাপে দেশব্যাপী আবারও লকডাউনের সিদ্ধান্ত খাম খেয়ালি ও দায়িত্বজ্ঞানহীন সিদ্ধান্ত। এমন লকডাউন জনগণ মেনে নেয়নি। আগে জনগণের রুটি রুজির ব্যবস্থা করুন। তার পর লকডাউন দিন। জনগণ সম্মানের সাথে বিধিনিষেধ মেনে চলবে।
তিনি আরও বলেন, লকডাউন নামক এই প্রহসনের নাটক মানুষ আর দেখতে চায় না। সরকার একদিকে লকডাউন ঘোষণা করেছে, অন্যদিকে শিল্প কারখানা, বইমেলা ও অফিস-আদালত খোলা রেখেছে। আবার একদিকে সাধারণ মানুষের যাতায়াতের মাধ্যম পাবলিক বাসগুলো বন্ধ রেখেছে, অন্যদিকে এলিটদের ব্যক্তিগত গাড়ি চলতে দিচ্ছে। এটা কেমন বৈষম? এটা কেমন দ্বিচারিতা আচরণ? এলিটময় গরিবের কাঁটা লকডাউনের নাটক এখনই বন্ধ করুন। জনগণ ইতোমধ্যে লকডাউনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রাস্তায় নামতে শুরু করেছে। জনগণকে দমিয়ে রাখা যাবে না।
সংগঠনের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইমরান হোসাইন নূরের সভাপতিত্বে ও ঢাকা মহানগর পূর্বের সভাপতি মুহাম্মাদ মাহবুবুর রহমানের সঞ্চালনায় আয়োজিত মানববন্ধনে করোনাকালীন ভাগ্যাহত দরিদ্র জনতার সাথে প্রণোদনা নাটক বন্ধের আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর করোনাকালীন প্রণোদনা প্যাকেজের নামে নেতাকর্মীদের পকেট ভারী করার যে তামাশা গত লকডাউনে বাংলাদেশের জনগণ দেখেছে তা আর দেখতে চায় না।
এবারো মোটা অংকের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। ওই টাকা যেন লুটেরাদের হালুয়া রুটিতে পরিণত না হয়। সঠিকভাবে যেন দরিদ্র জনগণের কাছে পৌঁছে ওই বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।
জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে পূর্ব-ঘোষিত মানববন্ধনে পুলিশ বাধা দেয়ায় এর তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রধান অতিথি বলেন, জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে আমাদের শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কর্মসূচিতে পুলিশের নগ্ন হস্তক্ষেপ স্বৈরাচারি আচরণ। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। পরে বিক্ষুব্ধ ছাত্র জনতার উত্তাল শ্লোগানে প্রেসক্লাব থেকে হাউজ বিল্ডিং চত্বরে মিছিল সহকারে এসে সমাবেশের মাধ্যমে সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

(ঊষার আলো-এমএনএস)

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ