ঈদের পূর্বে বদলী শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধ না করলে বৃহত্তর আন্দোলন

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক : সোমবার (১২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় খালিশপুর শিল্পাঞ্চলের ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি) কার্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন যুগ্ম আহবায়ক ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ জেলা সমন্বয়ক জনার্দন দত্ত নান্টু এবং সঞ্চালনা করেন সদস্য সচিব এস এ রশীদ।
সভায় বক্তব্য রাখেনÑবাম গণতান্ত্রিক জোট ও গণসংহতি আন্দোলন খুলনা জেলা সমন্বয়ক মুনীর চৌধুরী সোহেল, টিইউসি জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম চন্দন, বদলী শ্রমিকনেতা আব্দুর রাজ্জাক তালকুদার, মনোয়ার হোসেন, নূর আলম, এস এম ফয়সাল আহমেদ, লাকি বেগম। অন্যান্যদের মধ্যে অনলাইনে যুক্ত থেকে মতামত রাখেনÑপরিষদের আহবায়ক এ্যাড. কুদরত-ই-খুদা, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক বীরমুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. আ ফ ম মহসীন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. এম এম রুহুল আমীন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী) জেলা সভাপতি মোঃ মোজাম্মেল হক খান, সাধারণ সম্পাদক গাজী নওশের আলী, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ জেলা সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সমরেশ রায়, সম্পাদকম-লীর সদস্য কাজী দেলোয়ার হোসেন, সিপিবি নেতা মিজানুর রহমান বাবু, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট খুলনা জেলা সভাপতি আবদুল করিম, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম খুলনা জেলা সভাপতি কোহিনুর আক্তার কণা, গণসংহতি আন্দোলন ফুলতলা উপজেলা আহবায়ক ও ইস্টার্ণ জুট মিলের শ্রমিকনেতা মোঃ অলিয়ার রহমান, ফুলতলা উপজেলা সিপিবি নেতা গাজী আফজাল হোসেন, শ্রমিকনেতা শামসেদ আলম শমশের, শামস শারফিন শ্যামন প্রমুখ।
নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘ এক বছর পূর্ণ হলেও রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের বদলী-দৈনিকভিত্তিক ও নাম ভুলের কারণে স্থায়ী শ্রমিকরা আজও পর্যন্ত বকেয়া বেতন পায়নি। নিরুপায় শ্রমিকরা অর্থের অভাবে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। কিছু পাটকল শ্রমিক ভিন্ন ও অদক্ষ পেশায় যুক্ত থেকেও জীবিকা নির্বাহে হিমশিম খাচ্ছে। খুলনাসহ সারা দেশে করোনা মহামারী ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে অথচ এসব অসহায় পাটকল শ্রমিকদের রেশন বা সরকারী কোন অর্থ প্রদান করা হয়নি। এতদসত্বেও ঈদ-উল-আজহা সমাগত হলেও সরকার অস্থায়ী পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ সম্পর্কে আনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণা দেয়নি। তারা আরও বলেন, ঈদের আগে বদলী-দৈনিকভিত্তিক শ্রমিকদের সমুদয় বকেয়া বেতন পরিশোধ না করলে ঈদের পরে শ্রমিকদের সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। নেতৃবৃন্দ গত ৬ জুলাই মঙ্গলবার দুপুর আনুমানিক সোয়া ১টার দিকে যশোর কার্পেটিং জুট মিলের কিছু অসাধু কর্মচারী ও স্থানীয় চিহ্নিত সিন্ডিকেট যশোর কার্পেটিং জুট মিলের অভ্যন্তরে কাঁঠাল গাছের মূল্যবান লগ ও যন্ত্রাংশ অবৈধভাবে মিল থেকে বের করার ঘটনার প্রতিবাদ করায় পরিষদের আঞ্চলিক নেতা শামস শারফিন শ্যামনসহ কয়েকজনকে উক্ত সংঘবদ্ধ দল কর্মরত কর্মচারী নিশানের নেতৃত্বে তাকেসহ নিরাপত্তা কর্মীদের প্রহার করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।