জিডিপির আকার বাড়তে পারে ১৫-২০ শতাংশ

সর্বশেষ আপডেটঃ
30
0

ঊষার আলো রিপোর্ট : দেশের অর্থনীতির প্রকৃত চিত্র খুজে পেতে হিসাব ব্যবস্থাপনা খাতে সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এদিকে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে ‘ইমপ্রুভমেন্ট অব জিডিপি কম্পাইলেশন অ্যান্ড রিবেজিং অব ইন্ডিসিস’ শীর্ষক বিশেষ প্রকল্প। এর আওতায় বদলে যাচ্ছে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) হিসাবের ভিত্তিবছর। ২০০৫-০৬ অর্থবছরের পরিবর্তে সেটি নির্ধারণ করা হচ্ছে ২০১৫-১৬। এটি সম্পন্ন হলে, জিডিপির আকার বাড়বে ১৫-২০ শতাংশ। চলতি অর্থবছরে ল্যমাত্রা ৩১ লাখ ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়াতে পারে ৩৬ লাখ ৪১ হাজার ৫৭০ কোটি টাকা বা ৩৮ লাখ ৬ হাজার ১৬০ কোটি টাকায়।
সূত্রমতে, অর্থবছরের শেষদিকে ১ বার প্রাথমিকভাবে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হিসাব ও একই সাথে মাথাপিছু আয়ের তথ্য প্রকাশ করে বিবিএস। এর ৩-৪ মাস পর চূড়ান্ত হিসাব দেওয়া হয়। সেটিও কখনও কখনও অনিয়মিত হয়ে যায়। যেমন, গত অর্থবছরের ১ম হিসাবে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে ৫.২৪ শতাংশ। সে হিসাব প্রকাশের ৬ মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো চূড়ান্ত হিসাব দিতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি। কর্মকর্তারা বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে উন্নত দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও প্রতি ৩ মাস অন্তর প্রবৃদ্ধির তথ্য দিতে পারবে জনগণকে। সেই সাথে গ্রাম-শহর এমনকি জেলাভিত্তিক জিডিপির হিসাব দেওয়ারও পরিকল্পনা করা হচ্ছে। বিবিএস মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম জানান, হিসাব ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তিন মাসের মধ্যে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হিসাব দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও জিডিপির ভিত্তিবছর পরিবর্তন করা হচ্ছে। এটি করতে অনেকগুলো কাজ করতে হয়। তাই সেগুলো ধারাবাহিকভাবে করা হচ্ছে। শেষ হলে আরও বেশি হালনাগাদ তথ্য পাওয়া যাবে। এতে সরকারের পক্ষে সঠিক এবং কার্যকর পরিকল্পনা গ্রহণ সহজ হবে।

(ঊষার আলো-আরএম)

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ