তেল-গ্যাস-বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি খুলনার নেতৃবৃন্দের বিবৃতি

রামপাল তাপবিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল দাবি

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো ডেস্ক: রামপাল কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ প্রাণ-প্রকৃতি-মানুষ বিনাশী সকল প্রকল্প বাতিলের দাবি জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি খুলনা জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ।

প্রদত্ত বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সুন্দরবন বিধ্বংসী রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প প্রথম থেকেই মিথ্যাচার, অনিয়ম, অস্বচ্ছতা, প্রতারণা এবং জবরদস্তির ওপর পরিচালিত। দেশের আপামর জনগণ, পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশেষজ্ঞরাও রামপালসহ সুন্দরবন বিনাশী বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোর বিরোধিতা করেছেন। ভারতীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছেÑসুন্দরবন সংলগ্ন রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ভারতের ঝাড়খ-ের ধানবাদ থেকে এনে কলকাতা বন্দরে ৩ হাজার ৮০০ টন কয়লা খালাস করা হয়েছে যা’ বাংলাদেশের মংলা বন্দরে পাঠানো হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেছেন, পরীক্ষামূলকভাবে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালানোর জন্য কয়লা আমদানি করা হচ্ছে। ভারতীয় পত্রিকার সংবাদ থেকে আরো জানা গেছে, পুরোদমে বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু হলে প্রতি মাসে কলকাতা থেকে ২০ হাজার টন কয়লা সরবরাহ করা হবে। এদিকে সরকার দাবি করছে, কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য নয় এই কয়লা আনা হচ্ছে কেবলমাত্র কোল স্টোক ইয়ার্ডফ্লোরে ব্যবহার করার জন্য। প্রতি মাসে ২০ হাজার টন কয়লা ব্যবহার হবে এই কাজে। বলাবাহুল্য, ব্যবহার তো বটেই এই নি¤œমানের কয়লা পরিবহনেই সুন্দরবনের ক্ষতি হবে অপূরণীয়। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, সব সময়ই সরকার দাবি করে আসছে ভারত থেকে নি¤œমানের কয়লা আনা হবে না, এখানে ব্যবহার করা হবে উচ্চ প্রযুক্তি এবং সর্বোত্তম মানের কয়লা। অথচ আনা হচ্ছে নিকৃষ্ট মানের কয়লা। শুরু থেকেই প্রচার করা হয়েছে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে রামপালের স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। অথচ ঘটেছে বিপরীত। কনসালট্যান্ট তো বটেই শ্রমিক নিয়োগের ক্ষেত্রে অধিকাংশ ভারতীয়দের অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, করোনায় লকডাউন চলাকালে বহু প্রয়োজনীয় কাজ বন্ধ থাকলেও রাষ্ট্রীয় ধ্বংসযজ্ঞ আর জবরদস্তিমূলক এসব প্রকল্প জোরেসোরে চালাচ্ছে সরকার। বিভিন্ন কয়লা প্রকল্পে ব্যবসা করছে ভারত, চীন, জার্মানি, জাপানসহ বাংলাদেশের লুটেরা গোষ্ঠী। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পরিবেশ-প্রতিবেশ, জীববৈচিত্র্য ও সুন্দরবন রক্ষার স্বার্থে আর কালক্ষেপণ না করে নেতৃবৃন্দ সরকারকে রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্প বাতিলের দাবি এবং পাশাপাশি জনগণের প্রতি ঐক্যবদ্ধ ও সংগঠিত আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান।

বিবৃিতদাতারা হলেনÑকমিটির আহবায়ক এস এ রশীদ, সদস্য সচিব মোস্তফা খালিদ খসরু, বাম গণতান্ত্রিক জোট ও গণসংহতি আন্দোলন খুলনা জেলা সমন্বয়ক মুনীর চৌধুরী সোহেল, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) খুলনা জেলা সভাপতি ডাঃ মনোজ দাশ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ খুলনা জেলা সমন্বয়ক জনার্দন দত্ত নান্টু, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সমরেশ রায় প্রমুখ।