বৈশাখের দাবদহ লেবু-কলা’র গায়ে

সর্বশেষ আপডেটঃ
34
0

ঊষার আলো প্রতিবেদক : বৈশাখের তীব্রদাহ অস্তির করে তুলেছে নগরীবাসীকে। নতুন বছরের সপ্তাহ পার হতে চললেও দেখা মিলছে না বৃষ্টির। আবহাওয়ার এমন অবস্থা ও পবিত্র রমজানের প্রভাব পড়েছে লেবু ও কলার বাজারে। দিন ধরা ছোঁয়ার বাইরে যাচ্ছে এ দুটি প্রয়োজনীয় পণ্য।
খুলনা আঞ্চলিক অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ জানান, এপ্রিল -মে এই দু’ মাস বৃষ্টি হওয়ার আগ পর্যন্ত তীব্র গরম পড়বে।

এদিকে দিনের গরম বা তীব্রতা না যতটুকু শরীরকে গরম করে তুলছে তার চেয়ে এই রমজান মাসে সাধারন বাজার মুখি মানুষকে চারগুন বেশি তীব্র বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে দিচ্ছে কলা আর বাতাবী লেবু কিনতে গিয়ে। দৌলতপুর কাচাবাজারের লেবু বা কলার দাম এতই আকাশ ছোয়া যেন গায়ে আগুন লেগেছে।
সারাদিন রোজা শেষে গরমের পিপাসা মিটানোর জন্য লেবুর শরবতের চাহিদা জন্যই হয়তো লেবুর এমন আগুন পোড়া দাম। অবিশ্বাস্য ছোট্ট একটি লেবুর দাম ৫/৬ টাকা। আর সর্বোচ্চ ৮/৯ টাকা। আর এর বিপরীতে রয়েছে কলা। কলার কথাই বলা যাক সাগর, শবরি বা কাঁঠালি কলা যা সর্বনিন্ম প্রতিপিস ৪/৫ টাকা আর সর্বোচ্চ ৭/৯ টাকা পর্যন্ত।  লকডাউনের অজুহাত আর রমজান মাসকে পুঁজি করে একশ্রেনীর অসাধু ব্যবসায়ী এমনই দাম হাকছেন অধিকাংশের নিকট হতে।
বাজারে ক্রেতাদের অভিমত ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের নিয়মিত বাজার মনিটরিংয়ের পাশাপাশি বাজার কমিটিরও একটি অভিযোগ বাক্স করা উচিত যেখানে বাজারে আসা সাধারণ ক্রেতারা কোন পণ্য কিনতে বা দাম বাড়তির বিষয়ে অভিযোগ জানাতে পারে।
সরেজমিনে, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) খুলনা মহানগরীর সন্ধ্যাবাজার, বৈকালী কাচাঁবাজার, খালিশপুর সুপার মার্কেট (চিত্রালী সিনেমা সংলঘœ), জোড়াগেট সিএন্ডবি কোলনী বাজার ২৫০ শয্যা বেড সংঘগ্ন ডাক্তার পাড়া বাজার, সোনাডাঙ্গা মদিনাবাগ বাজার, রুপসা কাচাবাজার, নতুন বাজার, দৌলতপুর কাচাবাজার, ফুলবাড়ীগেট কাচা বাজার, শিরোমনিসহ বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার ভ্রাম্যমান ভ্যানে করে বেচার দৃশ্য একই।
নিরালা বাজারের ব্যবসায়ীরা বলছেন, বর্তমানে বাজারে যে লেবু আসছে তা সিলেট হতে আসছে। তবে লকডাউনের কারনে লেবুর দাম একটু বাড়তি তবে খুচরা ব্যবসায়ী একটু বেশি দামেই বিক্রি করছে। যেহেতু রমজান মাস চলছে তাই সকল ব্যবসায়ীর উচিত ক্রেতার নিকট হতে সহনীয় দাম রাখা।
এ বিষয়ে ফুলবাড়ীগেট বাজারের সভাপতি লেয়াকত বেগ বলেন, রমজান মাস রহমতের মাস। কোন অবস্থাতেই ব্যবসায়ীদের উচিত নয় ক্রেতাদের নিকট হতে বাড়তি দাম নেয়া। যেহেতু রোজার সময় কলা বা লেবু চাহিদা একটু বেশি থাকে তবে বিক্রেতাদের কেনার চেয়ে অধীক লাভ করা ঠিক নয়।

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ