সাংবাদিক তৈয়ব মুন্সির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি আ’লীগের

সর্বশেষ আপডেটঃ
63
0

ঊষার আলো রিপোর্ট: খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেককে জড়িয়ে এনটিভি’র সাংবাদিক আবু তৈয়ব মুন্সি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে ব্যক্তি আক্রোশে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করেছেন দাবী করে বিবৃতি দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

বুধবার (২১ এপ্রিল) দুপুরে প্রেরিত ওই বিবৃতিতে বলা হয়, আবু তৈয়ব মুন্সি তার ব্যক্তিগত আইডিতে বলেছেন, “বন্ড লাইসেন্স ম্যানেজিং ডাইরেক্টর খুলনা সিটি মেয়র? শুল্ক ফাঁকির জন্য আড়াই কোটি টাকার অর্থদন্ড, ৫ কোটি টাকা ৫৩ লাখ টাকা দাবিনামা। বন্ড লাইসেন্স বাতিল।” যা পুরোটাই মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তিনি ফেসবুকে এই মিথ্যা সংবাদ দিয়ে তার ব্যক্তিগত ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেককে নিয়ে যে সংবাদ তার আইডিতে প্রকাশিত হয়েছে সেটা শুধুমাত্র তার ব্যক্তিগত আক্রোশ, এখানে সাংবাদিকতার লেশমাত্র দেখা যায়নি। কারন সাংবাদিক হিসেবে কোন সংবাদ লিখলে তার জবাবদিহিতা থাকে। সেখানে কোন মিথ্যা, ব্যক্তি আক্রোশ বা উদ্দেশ্য প্রণোদিত তথ্য থাকে না। যা তার ব্যক্তিগত আইডিতে প্রকাশ করা হয়েছে। এটি পরিপূর্ণ সাংবাদিকতা ইথিক্সের পরিপন্থী। প্রকৃত পক্ষে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ২০১৭ সালের পূর্বে এই কোম্পানির সাথে জড়িত ছিলেন। পরবর্তীতে ২০১৭ সালের শেষের দিকে কোম্পনীর মিটিং করে তিনি ওই সকল দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়েছিলেন। ২০১৮ সালে সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বাচন করার সময় তার হলফনামায় সকল ঘটনা তুলে ধরেছেন। যা খুলনার সকল সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদরা জানেন। কারন এই ঘটনা নিয়ে ২০১৮ সালে সিটি নির্বাচনে বিএনপি সিটি মেয়রের নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছিলেন। সেই আপিলে বিএনপি তালুকদার আব্দুল খালেকের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারায় সেটি খারিজ হয়ে যায়। এই ঘটনা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, তালুকদার আব্দুল খালেকের বিরুদ্ধে সাংবাদিক আবু তৈয়ব মুন্সি যে সংবাদ করেছেন সেটি ব্যক্তিগত আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ মাত্র। আমরা এই সংবাদের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও এই মিথ্যা, উদ্দেশ্যেমূলক ভিত্তিহীন সংবাদ করে দক্ষিণাঞ্চলের গ্রহণযোগ্য বর্ষিয়ান নেতা, কর্মবীর তালুকদার আব্দুল খালেকের সম্মান ক্ষুন্ন করায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। নেতৃবৃন্দ এ ধরনের হলুদ সাংবাদিকতা থেকে বিরত থাকার জন্য সাংবাদিকসহ সকল গণমাধ্যমের কর্মী ও সোশাল মিডিয়ার সকলের প্রতি আহবান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিদাতারা হলেন, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহ উদ্দিন জুয়েল, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত কুমার অধিকারী।

ঊষারআলো-বিএস

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ