আলেমদের আগে সাড়ে ৩শ’ এমপির বিরুদ্ধে নোটিশ হওয়া উচিত

সর্বশেষ আপডেটঃ

ঊষার আলো রিপোর্ট : হেফাজত নেতাদের নামে দুদক থেকে সম্পদের হিসাব চেয়ে নোটিশ দেওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ।
এ সময়ে তিনি বলেছেন, আলেমদের আগে সাড়ে ৩০০ এমপির বিরুদ্ধে দুদক থেকে নোটিশ হওয়া উচিত ছিল।
আজ ১৫ জুন মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় সংসদে হজ ব্যবস্থাপনা বিল পাসের আগে সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেছেন তিনি।
এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়।
এ সময়ে হারুনুর রশীদ বলেছেন, সত্য কথা বললে স্বাভাবিক কারণে অনেকেই বেজার হন। সত্য কথাটা আসলেই কঠিন। আমরা আলেম কাকে বলব? আলেম-ওলামা তারাই যারা একেবারে সুনির্দিষ্ট ভাবে কুরআন এবং হাদিসের আলোকে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা করে। কোন মসজিদের ইমাম কিন্তু আলেম নয়।
তিনি বলেছেন, উদ্বেগের সঙ্গে বলছি। আমি যখন ছাত্র অবস্থায় ছিলাম, আমাদের যারা গুরুজন তারা আমাদেরকে বলতেন এই বিষয়গুলো প্রতি খুব সতর্ক থাকতে হবে। সমাজে যদি সত্যিকার অর্থে আলেম-ওলামারা ক্রিটিসাইজ হয়, সমালোচিত হয়, তাদের চরিত্র হননের চেষ্টা করা হয়। অবশ্যই আমি বলব সমাজের উদ্বেগ এবং অস্থিরতা বাড়বে।
তিনি আরও বলেছেন, শীর্ষ প্রায় ৫৭ জন আলেমের বিরুদ্ধে দুদক নোটিশ করে সম্পদের হিসাব চেয়েছে। আমি তো মনে করি আগে আমাদের এই সংসদের সাড়ে ৩০০ জন সদস্য যারা রয়েছি সর্বপ্রথম এই সাড়ে ৩০০ এমপির বিরুদ্ধে দুদক থেকে নোটিশ হওয়া উচিত ছিল। তাহলে এটি সারা দেশের মানুষের কাছে সমাদৃত হত। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগ মানুষ গ্রহণ করত। প্রধানমন্ত্রী তো বলেছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স।
এসময়ে তিনি ১-১১ তে রাজনীতিবিদদের রিমান্ডে নেয়ার পরে কথাগুলো স্মরণ করিয়ে বলেছে, রিমান্ডের পর যে সমস্ত খবর পত্রিকার আসে, কিভাবে আসে? আমরা ১-১১ সমযে় দেখেছি আমাদেরকে গ্রেফতার করে নিয়ে কিভাবে রিমান্ডে কি করা হয়েছে।

(ঊষার আলো- এম.এইচ)