UsharAlo logo
বৃহস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

একজন ক্ষুধার্ত অভিনেতা বলে ভাবতে ভালোবাসেন: কৃতি শ্যানন

usharalodesk
মার্চ ১৩, ২০২১ ২:০৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঊষার আলো বিনোদন ডেস্ক : অনেক কৃশকায় এবং দীর্ঘ চেহারার মেয়েটি যখন বলিউডে আসেন, তখন তাকে নিয়ে খুব একটা হইচই হয়নি। একে তিনি তথাকথিত বহিরাগত, কোনও ফিল্মি ব্যাকগ্রাউন্ড নেই। তার উপরে কোনও গড ফাদারের হাতও মাথায় ছিল না। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে একের পর সুপারহিট সিনেমা উপহার দিতে শুরু করেছে কৃতি। সমালোচক থেকে অনুরাগী, সবাই একবাক্যে স্বীকার করে নিলেন, এই মেয়ে শুধুই ট্রফি হিরোইন নন। ইনি অভিনয়টা বেশ ভালই করেন।
এমনিতে নায়িকা কৃতি শ্যানন বেশ সৌভাগ্যবতী। সেই প্রথম থেকেই তিনি বড় সিনেমার বড় হাউজের ব্যানারে কাজ করেছে। তার সিনেমা বক্স অফিসে ভালোই হিট করেন। অবশ্য নিন্দুকেরা বলেন, কৃতি বিগ ব্যানারের আনুকূল্য ছাড়াও পেয়েছেন দুর্দান্ত চিত্রনাট্য এবং দক্ষ সহ-অভিনেতাদের সমর্থন, তাই তার এত রমরমা।
অনেকেই জানে না যে কৃতি একজন মেধাবী ছাত্রী। ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করে যে কোনও চকচকে কর্পোরেট অফিসে নিশ্চিন্তে কাজ করতে পারেন। কিন্তু অভিনয় জগতের টানে দিল্লি থেকে মুম্বাই আসেন তিনি। এক সাক্ষাৎকারে কৃতি জানান, বলিউডে তার এ যাবৎ জার্নির কথা। অন্য শহর এবং অন্য পেশা থেকে এখানে এসেই তাড়াহুড়ো করে সাফল্য চাননি তিনি। ধীরে ধীরে অনেক ধৈর্য রেখে এগিয়েছেন। আর তার এই ধৈর্য তাকে সফলতার মুখ দেখিয়েছে।
কৃতি বলেন, যখন কেউ বহিরাগত হয়ে মুম্বাইতে আসে, তার কাছে অনেক কিছুই অজানা থাকে। সেই ব্যক্তিকে তখন তার ম্যানেজার আর কিছু এজেন্সি চালিয়ে নিয়ে যান। কৃতির ক্ষেত্রে যদিও এমনটা হয়নি। তার নিজস্ব মতামত ছিল খুব দৃঢ়। ২০১৪ সালে প্রথম সিনেমা মুক্তি পায় কৃতির। কিন্তু নায়িকা বলেছেন যে এখনও প্রতি সিনেমা মুক্তির আগে তার খুব নার্ভাস লাগে। প্রথম সিনেমা খুব গুরুত্বপূর্ণ একজন অভিনেতার কাছে, এটা মনে করে কৃতি। কারণ এখান থেকেই একজন অভিনেতার কেরিয়ার শুরু হয়।
নিজেকে একজন ক্ষুধার্ত অভিনেতা বলে ভাবতে ভালোবাসেন তিনি। অভিনয় নিয়ে খুব উচ্চাকাঙ্ক্ষী তিনি । রাবতা ছবিতে নিজের অভিনয় প্রতিভা দেখানোর সুযোগ পেয়েছে কৃতি । আর এখান থেকেই তার সঙ্গে জুড়ে যায় সুশান্ত সিং রাজপুতের নাম। পরে অবশ্য দু’জনের ব্রেক-আপ হয়ে যায়। আগামীতে ভেড়িয়া,বচ্চন পাণ্ডে, আর মিমির মতো সিনেমায় দেখা যাবে তাকে।

 

(ঊষার আলো-এম.এইচ)